শহীদ সভাপতি-সায়েম সম্পাদক চরবাড়িয়া ইউপির আ’লীগের নেতৃত্ব তরুনদের হাতে অর্পন

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ তরুন রাজনীতিবিদদের হাতে নেতৃত্ব তুলে দিয়েছে সদর উপজেলার চরবাড়িয়া ইউপির আ’লীগ নেতা-কর্মিরা। ওই ইউপির রাজনৈতিক ইতিহাসে প্রথম বারের মতো উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে ক্ষমতাসীন দলের নেতৃত্ব নির্বাচন। গতকাল শনিবার জনপ্রতিনিধি নির্বাচনের চেয়েও বেশি আমেজে ওই ইউপির কেন্দ্রস্থল তালতলী বাজারে অনুষ্ঠিত হলো আ’লীগের সম্মেলন ও নেতৃত্ব নির্বাচনের ভোট। এতে সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন মো. শহিদুল ইসলাম ওরফে ইটালী শহীদ। আর ভোট গ্রহন শুরুর পূর্বক্ষনে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীর প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে সমর্থন দিয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছে তরুন ও উদীয়মান রাজনীতিবিদ এসএম সাইফুল আলম সায়েম।
স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, দীর্ঘদিন পর কমিটি গঠনের জন্য সম্মেলন আয়োজনের ঘোষনার পর ঝিমিয়ে পড়া ক্ষমতাসীন দল আ’লীগসহ সহযোগি সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উজ্জীবিত হয়। ইউপিতে আ’লীগের নেতৃত্ব কার হাতে তুলে দেয়া হবে। সেই হিসাব নিকেশ করা শুরু করে নেতাকর্মিরা। দলের প্রতি ত্যাগ, সাংগঠনিক দক্ষতা ও কর্মীদের কাছে গ্রহনযোগ্য প্রমান করে বেশ কয়েকজন সভাপতি ও সম্পাদক পদ পেতে তদবির শুরু করে। এর মধ্যে সভাপতি পদে সাবেক সভাপতি আব্দুল খালেক হাওলাদার, শহিদুল ইসলাম ওরফে ইটালী শহিদ, শফিকুল ইসলাম জামাল ও খালেক প্যাদা এবং সম্পাদক পদে সাবেক সম্পাদক জাহাঙ্গীর হাওলাদার ও এসএম সাইফুল আলমের নাম উঠে আসে। তৃনমুল নেতা-কর্মিদের পছন্দের তালিকায় সবচেয়ে বেশি উঠেছে তরুন ও উদীয়মান ইটালী শহিদ এবং সায়েমের নাম। সেই হিসেবে সদর উপজেলা শাখা তাদের উপর আস্থা রাখার চেষ্টা করে। কিন্তু কয়েক সুযোগবাদীদের কারনে সে চেষ্টা সফল হয়নি। সুযোগবাদীরা তাদের স্বার্থসিদ্ধির কৌশল ভোট নেয়ার সিদ্বান্ত সফল করে। ইউপির প্রথমে ১৬৫ নেতা ভোটার নির্ধারন করা হয়। ভোটের দিনক্ষণ নির্ধারন করা হয় সম্মেলনের দিন ২৩ মে। এরপর শুরু হয় নির্বাচনী আমেজ। পোষ্টারে পোষ্টারে ছেড়ে যায় ইউপির কেন্দ্রস্থলসহ ইউপির সকল ওয়ার্ড ও গ্রাম। বাহারী রঙের পোষ্টার আর লিফলেট নিয়ে অনুসারীরা নেমে পড়ে ভোটার নেতাদের দ্বারে দ্বারে ভোট পেতে। গত কয়েকদিন ধরে চলে প্রচারণা। উৎসবের দিন গতকাল শনিবার প্রথমে তালতলী বাজারে হয় সম্মেলন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তরুনদের অহংকার হিসেবে পরিচিত, যাকে ঘিরে নগরীসহ জেলায় চলছে ক্ষমতাসীন দলের তরুন নেতা-কর্মিদের রাজনীতি সেই সাদিক আব্দুল্লাহ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, যেই নির্বাচিত হোক, তাদেরকে সংগঠনের কার্যক্রম সুন্দরভাবে পরিচালনায় সহযোগিতা করতে সকল স্তরের নেতা-কর্মিদের প্রতি আহবান জানান তিনি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন, জেলার প্রবীণ নেতা সৈয়দ আনিচুর রহমান, শ্রমিকলীগ জেলা সভাপতি শাহজাহান হাওলাদার, আ’লীগের সদর উপজেলা শাখার সভাপতি মনিরুল ইসলাম ছবি, ভাইস চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ শাহীন ও রেহেনা বেগম। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সাবেক ছাত্রনেতা তারিক বিন ইসলাম ও রফিকুল ইসলাম ঝন্টু। সম্মেলনের সভাপতিত্বে ছিলেন ইউপি শাখা আ’লীগের আহবায়ক আব্দুল মালেক হাওলাদার। বক্তব্যে রাখেন স্থানীয় নেতাকর্মিরা। পরে মধ্যাহ্ন ভোজ হয়। এরপর হয় নির্বাচন। এতে সম্পাদক পদে এসএম সাইফুল আলম সায়েম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়। পরে নেতা ভোটাররা সভাপতি নির্বাচনের ভোট দেন। শহিদুল ইসলাম ওরফে ইটালী শহিদ ৬৪ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী শফিকুল ইসলাম জামাল পান ৪৭ ভোট। ভোটের শেষে সকলে হাসিমুখে বুকের সাথে বুক মিলিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেন।