লালমোহনে মেয়েকে উত্যক্তর প্রতিবাদ করায় জীবন দিতে হয়েছে পিতাকে

লালমোহন প্রতিবেদক॥ লালমোহনে মেয়েকে উত্যক্তর প্রতিবাদ করায় জীবন দিতে হয়েছে পিতাকে। গতকাল সোমবার বিকাল ৫টায় উপজেলার চরভূতা ইউনিয়নের বাহাদুর চৌমুহনী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পিতার নাম সফি খনকার (৪৫)।
জানা গেছে, চরভূতা বাহাদুর চৌমুহনী এলাকার বাহাদুর বাড়ির সফি খনকার মাটির সর্দার পেশার সাথে যুক্ত। তার ৩ ছেলে ১ মেয়ে। মেয়েকে বিয়ে দিলে জামাতা প্রবাসে থাকে। একই এলাকায় থাকার সুবাধে ওই মেয়ের সাথে তারই আপন ফুফাতো ভাই শাহিনের পরকীয়া সম্পর্ক হয় বলে এলাকায় গুঞ্জন ওঠে। শাহিনেরও ঘরে স্ত্রী রয়েছে। তা সত্ত্বেও শাহিন প্রায়ই তার মামাতো বোনের মোবাইলে ফোন করতো। এনিয়ে পারিবারিক ভাবে সফি মাঝি ও তার বোন রিজিয়া এবং ভগ্নিপতির সাথে দ্বন্দ্ব শুরু হয়।
নিহত সফি খনকারের স্ত্রী কমলা দাবী করেন, ঘটনার সময় সোমবার বিকাল ৫টার দিকে শাহিনের বাবা ওহাব আলী, শাহিন, তার ভাই রাকিব ও মা রিজিয়া, শাহিনের স্ত্রী তৈয়মা লাঠিসোঠা নিয়ে সফি খনকারের উপর হামলা চালায়। এসময় সফি খনকার মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। তাকে দ্রুত লালমোহন হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়।
লালমোহন হাসপাতালের কর্তব্যরত ইনডোর মেডিকেল অফিসার ডাঃ রাকিব আহমদ খান জানান, লাশ হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয়। লাশের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। কিভাবে মৃত্য হয়েছে তাই তা বলা যাচ্ছে না। পোস্টমর্টেম করা হলে বলা যাবে।
এদিকে লালমোহন থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে পোস্টমর্টেমের জন্য ভোলা পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে।