লালমোহনে অভিভাবকদের অভিযোগ শিক্ষকদের সমন্বয়হীনতার কারণেই কমছে শিক্ষার মান

মোঃ জসিম জনি, লালমোহন ॥ লালমোহনের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপিঠ লালমোহন হাই স্কুল তথা লালমোহন মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের সমন্বয়হীনতার অভাবে শিক্ষার মান খারাপ হচ্ছে। স্কুলে ছাত্রদের অনুপস্থিতি, নিয়মিত ক্লাস না হওয়া, কিছু শিক্ষকদের প্রাইভেট বাণিজ্য এবং পরীক্ষার সময় পাসের জন্য দৌড় ঝাপ ইত্যাদি কারণে এ স্কুলে শিক্ষার মান নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। তবে এ বিদ্যালয়ে যোগ্য শিক্ষক থাকলেও তাদের মধ্যে কোন সমন্বয় নেই বলে উন্মুক্ত আলোচনায় অভিভাবকরা এ মতামত প্রকাশ করেন।
সোমবার সকাল ১১ টায় লালমোহন মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের হলরুমে শিক্ষার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে পরিচালনা পর্ষদ, শিক্ষক-শিক্ষিকা ও অভিভাবকদের সমন্বয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় অভিভাবকরা বলেন, হাই স্কুলের বর্তমান অবস্থা কেবল একদিনেই হয়নি। এ স্কুলটি ঐহিত্যবাহী একটি প্রতিষ্ঠান। এ স্কুলে ইউনুছ মিয়ার মতো যোগ্য প্রধান শিক্ষক ছিলো। তাকে সরিয়ে দেওয়ার পর থেকেই এ স্কুল প্রকৃত ঐতিহ্য হারাতে শুরু করে। বর্তমানে স্কুলে যোগ্য শিক্ষক থাকা সত্ত্বেও তাদের মধ্যে সমন্বয়হীনতার অভাব আছে। এ কারণে ছাত্ররা নিয়মিত স্কুলে উপস্থিত হয় না। যদি শিক্ষকরা প্রতিটি ক্লাসে হাজিরা ডেকে ছাত্রদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতো, তাদের আন্তরিকভাবে পাঠদান করতো, তাহলে একজন ছাত্রও ক্লাসে অনুপস্থিত থাকতো না।
মতবিনিময় সভায় লালমোহন মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব সফিকুল ইসলাম বাদল পঞ্চায়েতের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ রফিকুল ইসলাম, প্রধান শিক্ষক মোঃ হেলাল উদ্দিন, সহকারী প্রধান শিক্ষক আবু তৈয়ব, সহকারী শিক্ষক মোঃ শাজাহান, ইউসুফ মনজু, ফারহা দিবা। এসময় অভিভাবকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা মনির হাওলাদার, করিমুন্নেছা-হাফিজ মহিলা কলেজের প্রভাষক মোশারেফ হোসেন, আল এমরান, গজারিয়া ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক মোঃ ইব্রাহিম, মোঃ জহিরুল হক সেলিম, ইউএনও অফিসের মোঃ হেলাল উদ্দিন, ফুলবাগিচা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও পৌরসভা ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি মাওঃ মোস্তাফিজুর রহমান, ব্যবসায়ী মোঃ মাহবুব, সাংবাদিক শাহিন আলম মাকসুদ প্রমূখ।