র‌্যালি, সভা ও মহড়া প্রদর্শনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বাংলাদেশে আমাদেরকে প্রায়শই কোন না কোনো দুর্যোগের সম্মুখীন হতে হয়। দুর্যোগ সমূহের কিছু মানুষের সৃষ্টি আবার কিছু প্রাকৃতিক। সম্ভাব্য দুর্যোগ সমূহের সম্পর্কে জ্ঞান, দুর্যোগ পূর্ব কালীন ও পরবর্তী সময়ে করণীয় সম্পর্কে ধারনা নিয়ে দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস করার মাধ্যমে সকল স্তরের জনগণের সহযোগীতায় একটি দুর্যোগ সহিষ্ণু বাংলাদেশ গড়ে তোলা সম্ভব বলে জানিয়েছেন বিভাগীয় কমিশনার মোঃ গাউস। জ্ঞানই জীবন এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বর্ণাঢ্য র‌্যালি, আলোচনা সভা ও মহড়া প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস উদযাপিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টায় নগরীর মডেল স্কুল এন্ড কলেজ অডিটোরিয়ামে বিভিন্ন এনজিওর সহযোগীতায় জেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক ডা. গাজী মোঃ সাইফুজ্জামানের সভাপতিত্বে দিবসটি উদযাপনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার মোঃ গাউস। বিশেষ অতিথি ছিলেন বরিশাল রেঞ্জের ডিআইজি মোঃ হুমায়ন কবির (পিপিএমবার), ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফিন্সের উপ-পরিচালক শওকত হাসান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আব্দুর রউফ মিয়া, মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মেজর মাসুদ রানা প্রমুখ। এ সময় বক্তারা বলেন, পৃথিবীর জলবায়ু পরবর্তীত হচ্ছে এবং পৃথিবীর সকল স্থানে তা ভৌত, প্রাকৃতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্র সহ জনগোষ্ঠির জীবন ব্যবস্থার উপর প্রভাব ফেলেছে। বৈশি^ক জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাংলাদেশ ও অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ দেশ। তাই ঝুঁকির হাত থেকে রক্ষায় আমাদেরকে বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে প্রশিক্ষণ ও জ্ঞান অর্জন করতে হবে। এছাড়াও দুর্যোগ থেকে রক্ষা পেতে গ্রামাঞ্জলের সাধারণ মানুষের কাছে প্রচার প্রচারণা বৃদ্ধি করতে হবে। যার ফলে পরবর্তীতে কোন ধরনের দুর্যোগ কবলিত হলেও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এবং আহত ও নিহত মানুষদের সংখ্যা কমে আসবে বলে তারা আশা ব্যক্ত করেন। পরে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফিন্সের কর্মী ও মডেল স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ্আগুন থেকে রক্ষা পেতে মহড়া অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বরিশালের উপ-পরিচালক শওকত হাসান জানান, এই মহড়ার মাধ্যমে সাধারণ মানুষ কিভাবে আগুনের হাত থেকে রক্ষা পাবে সে বিষয়গুলো উপস্থাপন করা হয়েছে। এখানে আগুন লাগার পর কিভাবে অটোস্কেপ, ইয়ার লিফটিং এর মাধ্যমে উদ্ধার করা হয় সেগুলোর বাস্তব চিত্র দেখানো হয়েছে। যার ফলে সাধারণ মানুষ এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানবে এবং উজ্জীবিত হবে। পরবর্তীতে কোথাও কোন অগ্নিকান্ড ঘটলে মানুষসহ বিভিন্ন মালামালের ক্ষতি অনেকাংশে কমে আসবে। এর পূর্বে নগরীর সার্কিট হাউজ থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মডেল স্কুল এন্ড কলেজে গিয়ে শেষ হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন তথ্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ জাকির হোসেন, পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক সুকুমার বিশ^াস, জেলা ত্রান ও দুর্যোগ কর্মকর্তা প্রকাশ চন্দ্র বিশ^াস, সেইন্ট বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক কাজী জাহাঙ্গীর কবির, ব্র্যাকের প্রতিনিধি রিপন চন্দ্র মন্ডলসহ রেড ক্রিসেন্ট ও অন্যান্য এনজিও’র কর্মকর্তাবৃন্দ।