র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালতের প্রায় সাড়ে আট লাখসহ দুই দালালের কারাদন্ড ও ওষুধ কোম্পানির চার প্রতিনিধির জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে বিশেষ অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব-৮। এসময় দালাল এবং ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধি সহ ৬ জনকে আটক করে তারা। পরে র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. গাউসুল আজম ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে আটক দুই দালালকে পৃথক মেয়াদে কারাদন্ড এবং ওষুধ কোম্পানির চার মেডিকেল প্রতিনিধিকে জরিমানার আদেশ দেন। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সোয়া ১০টা হতে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এই অভিযান পরিচালিত হয়। এছাড়া ডায়গনষ্টিক ল্যাব থেকে আট লাখ ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
দন্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে বরিশাল নগরীর পলাশপুর এলাকার বাসিন্দা এবং হাসপাতালের দালাল ও ছিনতাইকারী মো. রাসেলকে তিন মাস এবং হাসপাতাল সংলগ্ন লাইফ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের দালাল বাপ্পি হাওলাদারকে ১ মাসের করাদন্ড দেয়া হছে।
এছাড়া কৌটাজাত ভুয়া ওষুধ কোম্পানি নিপা ফার্মাসিউটিক্যাল’র মেডিকেল প্রতিনিধি মো. রফিকুল ইসলামকে ২০ হাজার, সিপ্রো ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির প্রতিনিধি আক্কাস হোসেনকে ২০ হাজার, ডেলটা ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির প্রতিনিধি আব্দুল কাশেমকে ২০ হাজার এবং ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধি সাইফুল ইসলামকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক মাস করে কারান্ড দেয়া হয়েছে।
শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা. এসএম সিরাজুল ইসলাম বলেন, সকাল ৮টা হতে দুপুর ১টার মধ্যে ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের হাসপাতালে প্রবেশ না করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কিন্তু তারা নির্দেশনার কর্নপাত করছে না। এর আগেও র‌্যাব অভিযান চালিয়ে কয়েকজন দালাল ও ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিকে আটক এবং ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করেছে। তাছাড়া কোম্পানির প্রতিনিধিদের ব্যাগও জব্দ করা হয়। তার পরেও তারা অসময়ে হাসপাতালে প্রবেশ করে চিকিৎসক এবং রোগীদের ভোগান্তিতে ফেলে।
অপরদিকে দিনভর হাসপাতালের সামনের একাংশের ডায়গনষ্টিক সেন্টারে অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমান আদালত আট লাখ ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে। এসব ডায়াগনষ্টিক সেন্টার’র মধ্যে লাইফ কেয়ার থেকে ৫ লাখ, ডক্টর’স ল্যাব থেকে ১ লাখ, ডিজিটাল ডায়গনষ্টিক সেন্টার থেকে ১ লাখ, কনিকা ডায়াগনষ্টিক সেন্টার থেকে ৮০ হাজার ও মেডি এইড থেকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
এদিকে গত সোমবার সন্ধ্যা থেকে শুরু হওয়া র‌্যাবের বিশেষ অভিযান গতকাল মঙ্গলবার দিনভর পরিচালিত হয়। হাসপাতালে অভিযান শেষে হাসপাতালের সামনে ব্যক্তি মালিকানাধীন সকল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালান তারা। এর আগে সোমবার বরিশালের অভিযান রেস্তরা এবং মিষ্টান্য বান্ডারে অভিযান চালায় র‌্যাব। এছাড়া বরিশাল-ঢাকা রুটের এমভি সুন্দরবন-১১ লঞ্চের কেন্টিনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ২৫ হাজার সহ মোট প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। র‌্যাবের এই বিশেষ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-৮ এর উপ-পরিচালক সোহেল রানা প্রিন্স।