র্ াতিক নারী স্বাস্থ্য দিবস উদযাপনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক॥‘নিরাপদ প্রসব সেবা পাওয়া আমার অধিকার’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে আন্তর্জাতিক নারী স্বাস্থ্য দিবস উদযাপনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় নগরীর রিপোর্টার্স ইউনিটির মিলনায়তনে নারীর স্বাস্থ্য অধিকার আন্দোলন জোটের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নারীর স্বাস্থ্য অধিকার আন্দোলন জোটের সাধারন সম্পাদক কাওছার পারভীন। এ সময় তিনি বলেন নারীকে অধিকার সম্পন্ন মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে তার স্বাস্থ্য অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। নিরাপদ প্রসব সেবা পাওয়া নারীর অধিকার, তা নিশ্চিত করতে হলে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত দাইয়ের সংখ্যা বৃদ্ধি এবং যেকোন প্রসব জটিলতায় তাৎক্ষণিকভাবে হাসপাতালে যাবার ব্যবস্থায় আগাম আয়োজন ও হাসপাতালে প্রশিক্ষন প্রাপ্ত সেবা দানকারীদের ২৪ ঘন্টা সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিত করা পরিবার ও রাষ্ট্রের দায়িত্ব। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন ২০০১ সাল থেকে এই বিভাগে দিবসটি পালন করে আসছে। এই বছরও স্থানীয় পর্যায়ে ডঐজঅচ আন্তজ প্রকল্পের আওতায় ৩টি জেলা ও ৬টি উপজেলায় ৯টি স্থানীয় সহযোগী সংগঠনের মাধ্যমে ২৮মে আন্তর্জাতিক নারী ও স্বাস্থ্য দিবসটি উদযাপন করবে। এ সময় তিনি অধিকার ভিত্তিক সমন্বিত নিরাপদ প্রসব সেবা সকল অবস্থায় এবং সকল ক্ষেত্রে যেখানে প্রয়োজন তা নিশ্চিত করার জন্য সরকারের কাছে সুপারিশ তুলে ধরেন। ১) নারী তার সন্তান কোথায় প্রসব করাতে চায় তা জানতে হবে এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ২) নারী বাড়িতে সন্তান প্রসব করাতে চাইলে সেখানে নিরাপদ প্রসব নিশ্চিত করতে হবে। ৩) প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত দাই কর্মসূচীর সম্পূরক হিসেবে সনাতন দাইদের প্রশিক্ষণ কর্মসূচী পুনরায় শুরু করতে হবে। ৪) যেখানে নি¤œমানের বা আংশিক কার্যকর স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থা বিদ্যমান সেখানে প্রশিক্ষিত সনাতন দাইদের সেবা দানের ভূমিকাকে প্রসারিত করতে হবে। ৫) গর্ভবস্থা, প্রসবকালীন এবং প্রসবোত্তর সকল সময়ে জরুরী প্রসূতি সেবা, ঊসবৎমবহপু ঙনংঃবঃৎরপ ঈধৎব (ঊগঙঈ), জটিল স্বাস্থ্য সেবার একটি সমন্বিত কার্যক্রমে প্রবেশাধিকার থাকবে, যা প্রসূতির জীবন বাঁচানোর জন্য দ্রুত ও দক্ষতার সাথে দেয়া হবে। ৬) সরকারি স্বাস্থ্য সেবার প্যাকেজে প্রসবপূর্ব এবং প্রসবোত্তর সেবাগুলি অবশ্যই অন্তর্ভূক্ত থাকতে হবে, শুধুমাত্র শিশু জন্মদানের সময় সেবা পরবর্তীতে উদ্ভুত জটিলতার জন্য যথেষ্ট নয়; যা নারীর জীবনকে আরো বেশি ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দেয়। ৭) প্রশিক্ষিত দাই প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের ওঈচউ এবং ঈঊউঅড এর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার (ঝজঐজ) সংক্রান্ত বিষয়গুলো সংযুক্ত করতে হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নারী স্বাস্থ্য অধিকার জোটের সভাপতি রণজিৎ দত্ত, মুক্তিযোদ্ধা এমজি কবির ভুলু, রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল বিশ্বাস, নারী নেত্রী হাসিনা বেগম নীলা প্রমুখ