রিলেশন বিজনেস সেন্টারে চুরি লোভ করে ধরা পড়লো চোর

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ অতিরিক্ত লোভ করে ধরা খেয়েছে চোর। গতকাল বুধবার চুরি করা চেক নগদায়ন করতে এসে ধরা পড়া চোর হলো-বাকেরগঞ্জ উপজেলার চর সমুদ্ধি বালী গ্রামের মোজাম্মেল সিকদারের ছেলে নজরুল ইসলাম সিকদার। সে মঙ্গলবার দিনগত গভীর রাতে নগরীর প্যারারা রোডে রিলেশন বিজনেস সেন্টারে চুরি করে।
কোতয়ালী মডেল থানার এসআই আব্দুল কুদ্দুস জানান, গভীর রাতে প্যারারা রোডের বিজনেস সেন্টারের অবস্থান চারতলা ভবনের ছাদের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে। পরে ভবনের দ্বিতীয় তলায় রিলেশন বিজনেস সেন্টারে পৌছে। ওই সেন্টারের তালা ভেঙ্গে প্রবেশ করে নগদ সাড়ে ৭ লক্ষ টাকা, সাড়ে ১০ লক্ষ টাকার প্রায় ৪ টি মোবাইল সেট, ১ হাজার মেমরি কার্ড, ৮০ টি পেন ড্রাইভ, ২ শত টি ব¬ু-টুথ যন্ত্র, ৪৫০ টি ব্যাটারি, মোবাইল ফোনের চার্জ দেয়ার যন্ত্র পাওয়ার ব্যাংক ১০০টি, চার্জার ২০০টি, সিম ২০০টি ও একটি ডেক্সটপ কম্পিউটার সহ আনুমানিক ২৫ লক্ষ টাকার মালামাল চুরি করে। এছাড়াও শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের হিসেব নম্বরের বিপরীতে দেয়া ৬ লাখ টাকার তিনটি চেক চুরি করে সে। তার চুরি করার দৃশ্য সিসি ক্যামেরায় ধারণ হয়।
সকালে প্রতিষ্ঠানটির সংশ্লিষ্টরা চুরির বিষয়টি টের পেয়ে সিসি ক্যামেরা থেকে চোরের স্থির চিত্র ধারন করে। পরে স্থির চিত্র ও ভিডিও চিত্র নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দেয়।
এসআই কুদ্দুস জানান, মোবাইল ফোন সেট বিক্রি করতে আসতে পারে এই সন্দেহে গীর্জা মহল্লা এলাকায় নজরদারি শুরু করেন।
এক সময় ভেনাশ শপিং কমপ্লেক্সের মধ্যে ব্যাংকে চেক তিনটি নগদায়নের উদ্দেশ্যে আসা চোর নজরুল ইসলামকে চিহ্নিত করা হয়। পরে তাকে আটক করে চুরি হওয়া চেক তিনটি তার কাছে পাওয়া গেলে নিশ্চিত হয়। তখন জিজ্ঞাসাবাদে নজরুল চুরি করার ঘটনা স্বীকার করে। এই সময় তার কাছ থেকে একটি মোটর সাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বাকেরগঞ্জ উপজেলার চরসমুদ্ধি বালী গ্রামে এক দোকান থেকে চোরাই মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার হওয়া মালামালের মধ্যে রয়েছে মেমোরি কার্ড ৩০৮ টি, নগদ ৮৫ হাজার টাকা, ব্লুট্রুথ ১৯ টি, পেন ড্রাইভ ১৮ টি, ব্যাটারি ১৬ টি, মোবাইল ফোন সেট ৪৬ টি, এলইডি মনিটর একটি ও চুরি করার ৭ সরঞ্জাম।
এর আগেও চুরি করে নজরুল একাধিকবার আটক হয়েছে বলে এলাকাবাসী তাকে জানিয়েছেন বলেন এসআই কুদ্দুস। তিনি আরো জানান, নজরুল একাই চুরি করেছে। প্রতিষ্ঠানে সিসি ক্যামেরা রয়েছে জেনে কোন আলো জ্বালেনি। কিন্তু যে টুকু আলো জ্বেলে চুরি করেছে তাতে সিসি ক্যামেরায় স্পষ্টভাবে ধারন হয়েছে। যার কারনে চিহ্নিত করতে বেশি বেগ পেতে হয়নি।