রহস্যজনকভাবে একই সময়ে পৃথক দুই স্থানে শিশু পাচারকারী সন্দেহে দুইজনকে গণধোলাই রহস্যজনকভাবে একই সময়ে পৃথক দুই স্থানে শিশু পাচারকারী সন্দেহে দুইজনকে গণধোলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ নগরীর নতুন বাজার এবং গড়িয়ারপাড় এলাকায় একই সময় শিশু পাচাঁরকারী সন্দেহে দুই ব্যক্তিকে গণধোলাই দিয়েছে স্থানীয়রা। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় পৃথক স্থানে এই ঘটনায় আহত দু’ ব্যক্তিকে পুলিশ আটক করেছে। এরা হলো- এনামুল হক (৩০) এবং মিজান মোল্লা (৫০)।
এদিকে একই সময় দুই স্থানে শিশু পাচারকারী সন্দেহে গণধোলাই’র ঘটনা ঘটলেও বিষয়টিতে তেমন গুরুত্ব দিচ্ছে না পুলিশ প্রশাসন। ফলে এ নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টির পাশাপাশি আতংক বিরাজ করছে।
ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নগরীর নতুন বাজার মরক খোলার পুল এলাকার হকের লাকুরির গোলার কর্মচারী কালু জানায়, গতকাল বুধবার বেলা ১২টার দিকে এনামুল নামের ঐ ব্যক্তি তাদের দোকানের সামনে রহস্যজনকভাবে ঘোরা ফেরা করে। এর মধ্যে বেশ কয়েকবার তার বাসার ঠিকানা এবং কজন ছেলে মেয়ে তা জানতে চায় এনামুল হক নামের ঐ ব্যক্তি। এক পর্যায়ে রাতে ঐ ব্যক্তি কালুকে বাসায় নিয়ে যেতে বলে।
কালু জানায়, তার এমন কথা বার্তা এবং চলাফেরা সন্দেহজনক মনে হলে তিনি স্থানীয়দের কাছে বিষয়টি জানান। এক পর্যায় স্থানীয়রা এসে শিশু পাচারকারী সন্দেহে এনামুলকে গনধোলাই দেয়। খবর পেয়ে কাউনিয়া থানার এসআই মনির সহ পুলিশেল টিম ঘটনাস্থলে পৌছে ঐ ব্যক্তিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। আটকৃত এনামুল স্বরুপকাঠির হাতেম আলী’র ছেলে।
এদিকে বিমানবন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মতিয়ার রহমান জানান, বিমানবন্দর এলাকায় মিজান মোল্লা নামের এক ব্যক্তি ঘোরা ফেরা করতে ছিলো। এসময় শিশু পাঁচারকারী সন্দেহে তাকে গণধোলাই দেয় স্থানীয়রা। এতে সে গুরুতর আহত হলে চিকিৎসার জন্য তাকে শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে যায় থানা পুলিশ। তবে গনধোলাই’র শিকার ঐ ব্যক্তি কিছুটা মানষিক ভারসাম্যহীন বলে জানিয়েছেন তিনি।
এদিকে নগরীতে একই সময় শিশু পাঁচারকারী সন্দেহে দু’জনকে গনধোলাই’র ঘটনায় ব্যাপক রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। তবে পুলিশ দুটি ঘটনাই অনাকাংখিত দাবী করলেও এলাকাবাসীর মাঝ থেকে আতংক কাটছে না। এর কারন হিসেবে নতুন বাজার মরক খোলার পুল এলাকার কালু নামের ঐ ব্যক্তি জানান, আটক এনামুলের সাথে তার কথা হয়েছে। এসময় এনামুল তাকে জানায় যে, তিনি নগরীর সদর রোড এলাকায় আবাসীক হোটেল নূপুরে কক্ষ ভাড়া নিয়ে থাকছেন। তার সাথে আরো লোক রয়েছে।
অপরদিকে বিমানবন্দর থানা এলাকার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মিজান মোল্লা নামের ঐ ব্যক্তিকে এর আগে এলাকায় কখনো দেখা যায়নি। এই প্রথম তাকে ঐ এলাকায় ঘোরা ফেরা করতে দেখেছেন। এমনকি ছোট বাচ্চাদের পাশে এমনকি তাদের সাথে সন্দেহ জনক আচারন করতে দেখেছেন। তাই পুলিশের উচিৎ হবে বিষয়টি ভালো ভাবে তদন্ত করে দেখা।