যৌতুকের জন্য নির্যাতনে গৃহবধূ হাসপাতালে

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যৌতুকের দাবিতে এক গৃহবধূকে নির্মম ভাবে নির্যতন করেছে শ্বশুর বাড়ির লোকেরা। গতকাল বুধবার নগরীর পলাশপুর এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত গৃহবধূ হাফসা আক্তার (২০) কে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সে পলাশপুর ৭ নম্বর সড়কের আলম বিশ্বাসের ছেলে রাজু বিশ্বাসের স্ত্রী। হাফসা একই এলাকার আলী হাওলাদারের কণ্যা।
আহত’র পরিবার জানায়, গত ৩ বছর পূর্বে রাজুর সাথে বাল্য বিয়ে হয় হাফসার। গত তিন বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে রয়েছে ৬ মাস বয়সী একটি শিশু সন্তান।
এদিকে বিয়ের পর থেকেই বিভিন্ন সময় স্বামী রাজু ও শ্বশুর বাড়ির লোকেরা যৌতুকের দাবীতে অমানুসিক নির্যাতন চালায়। হাফসা জানায়, ৬ মাস পূর্বে সন্তান হওয়ার এক মাসের মাথায় পুনরায় যৌতুকের টাকা পেতে তার উপরে নির্যাতন শুরু করে। এ সময় তার মাথার চুল কেটে ন্যাড়া করে দেয় শাশুড়ী লিপি বেগম।
এর পরেও খ্যান্ত হয়নি তারা। বেশ কিছুদিন যাবত মটর সাইকেল কেনার জন্য এক লাখ টাকা যৌতুক চেয়ে আসছে স্বামী রাজু। টাকা না দিতে পারায় রাজু তার বাবা আলম ও মা লিপি বেগম মিলে ঘরের দরজা বন্ধ করে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে তাকে। এসময় হাফছার বুকে পা দিয়ে আঘাত করে। এতে তার স্তনে সমস্যার সৃষ্টি হলে ৬ মাসের শিশু সন্তান দুধ পান করতে পারছে না। এমন অবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় পাশন্ড স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ীর বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান গৃহবধুর সাবার পরিবার।