মামা হত্যায় ভাগ্নের ফাঁসি

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ ছোটবেলা থেকে লালন-পালন করা মামাকে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ভাগ্নেকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছে আদালত। একই সাথে ১০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। গতকাল রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা ও দায়রা জজ মো. আনোয়ারুল হক দন্ডাদেশটি ঘোষনা করেন। দন্ডপ্রাপ্ত ভাগ্নে স¤্রাট রায় ঘোষনার সময় আদালতে অনুপস্থিত ছিলেন। সে বাবুগঞ্জ উপজেলার পূর্ব দেহেরগতি গ্রামের বাসিন্দা ওফাজউদ্দিনের ছেলে। পলাতক ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী স¤্রাটকে রায়ের বিরুদ্ধে আপীল করার সুযোগ ৭ দিন দিয়েছেন জেলা ও দায়রা জজ।
আদালত সূত্র জানায়, মায়ের অন্যত্র বিয়ে হওয়ায় ছোট বেলা থেকে স¤্রাট উত্তর রহমতপুর নানা বাড়ীতে মামা হাবিবুর রহমান মোল্লার কাছে থাকতো। সেই নানা বাড়ীতে মায়ের উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া জমির পরিমান নিয়ে স¤্রাটকে লালন-পালন করা মামা হাবিবুর রহমান মোল্লার সাথে বিবাদ হয়। বিবাদের জেরে ২০০৮ সালের ৮ মে লাঠি দিয়ে হাবিবুর রহমানকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে স¤্রাট। পরে তাকে উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ওই দিনই চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাবিবুর মারা যায়। এ ঘটনায় নিহত হাবিবুররের ছেলে সরোয়ার মোল্লা বাদী হয়ে পরের দিন বাবুগঞ্জ থানায় মামলা করে। ওই বছরের ২৬ জুন স¤্রাটকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট জমা দেয় থানার এসআই মোঃ মনিরুল ইসলাম। মামলার ১৩ জনের মধ্যে ৮ জনের সাক্ষ্য নিয়ে রায় দেন বিচারক। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী গিয়াসউদ্দিন কাবুল জানান, আসামি স¤্রাটের পক্ষে কোন আইনজীবী না থাকায় সরকার পক্ষ থেকে এ্যাড. সামসুদ্দিনকে মামলা পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হয়।
উচ্চ আদালতের আপিলের বিষয়ে সামসুদ্দিনের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, উচ্চ আদালতে আপিল করার জন্য কোন অধিকার তার নাই।