মহানগর ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেলন বিএম কলেজে কমিটি নেই, কর্মপরিষদ অবৈধ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বিএম কলেজে ছাত্রলীগের কোন কমিটি নেই। মেয়াদ উত্তীর্ণ কর্মপরিষদের নামে বিভিন্ন রকমের অপকর্ম পরিচালিত হচ্ছে। এর জন্য মহানগর ছাত্রলীগ কোন প্রকার দায়ী নয়। এছাড়া নূর আল আহাদ সাঈদী নামে যে ছাত্র নিজেকে ছাত্রলীগ নেতা দাবী করে সে একটি রাজাকার পরিবারের সন্তান।
গতকাল শনিবার দুপুর ১টায় নগরীর বান্দ রোডে সাউথ কিং চাইনিজ রেস্তোরায় মহানগর ছাত্রলীগ আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে কমিটির সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন লিখিত বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
গত ৭ আগষ্ট নগরী- থেকে বিভিন্ন আঞ্চলিক, জাতীয় এবং অনলাইন পত্রিকার প্রকাশিত সংবাদের ভিন্নমত প্রসন করে নগর ছাত্রলীগের সভাপতি বলেন, দীর্ঘ দিন পূর্বে সর্বজন শ্রদ্ধেয় শিক্ষক প্রফেসর অধ্যক্ষ শংকর চন্দ্র স্যারকে বিএম কলেজের কতিপয় ছাত্রলীগ নামধরী ব্যক্তিরা হামলা চালিয়ে ন্যাক্কার জনক ঘটনার ঘটায়। যা মহানগর সহ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দৃষ্টি গোচর হলে কেন্দ্রের নির্দেশে বিএম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। এর পর থেকে বিএম কলেজের মেয়াদ উত্তীর্ণ কর্ম পরিষদের নাম ভাড়িয়ে নানা প্রকার অপকর্ম করে আসছে। কিন্তু কর্ম পরিষদ মহানগর ছাত্রলীগের অধিনস্ত নয়। কর্মপরিষদের ব্যানারে থেকে যে বা যাহারা টেন্ডারবাজী, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী ও মাদক ব্যবসা করলে তার দায়ভার মহানগর ছাত্রলীগ বহন করবে না।
সংবাদ সম্মেলনে জসিম আরো বলেন, ইদানিং লক্ষ্য করা যাচ্ছে বিএম কলেজে নূর আল আহাদ সাইদি নামে এক ব্যক্তি ছাত্রলীগের একটি গ্রুপ পরিচয় দেয়। মূলত সে নগরীর কাউনিয়া এলাকার চিহ্নিত রাজাকার সোবাহান মিয়ার নাতি ও পরিবার বিএনপি জামায়াতের রাজনীতির সাথে জড়িত। এদের মত অনুপ্রবেশকারীদের কারনে ছাত্র রাজনীতি আজ কলঙ্কিত হচ্ছে। মেয়াদ উত্তীর্ণ কর্ম পরিষদের ব্যানারে টাকা ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে বিভিন্ন সময় ঝামেলার সৃষ্টি হচ্ছে। গত ৬ আগষ্ট বিএম কলেজে যে ঘটনাটি ঘটেছিলো এটা তারই একটি অংশ।
জসিম উদ্দিন বলেন, ঐতিহ্যবাহী বিএম কলেজে নতুন করে কোন কমিটি দেয়ার পূর্বে সেখানে কোন প্রকার অনৈতিক কর্মকান্ডের দায়ভার মহানগর ছাত্রলীগ নিবে না। এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটে থাকলে সে বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ এবং পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুরোধ জানান নগর ছাত্রলীগের এই নেতা।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন- নগর ছাত্ররীগের সহ-সভাপতি রেজভি ইসলাম, রিয়াজ ভুইয়া, বাবলু জমাদ্দার, জাকারীয়া সোয়েব মিরাজ, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক রিফাত হোসেন রাব্বি, আরিফুর রহমান, হুমায়ুন কবির সুমন, হাবিবুর রহমান বাপ্পি, সাংগঠনিক সম্পাদক তারিকুল ইসলাম কানন, প্রদীপ দাস, সরকারী বরিশাল কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি আল মামুন, বিএম কলেজ ছাত্রলীগ নেতা কাজী মিলন প্রমুখ।