মন্ত্রীর নিজের শহরে পর্যটন দিবস পালন হয়নি

চন্দন জ্যোতি॥ গতকাল শনিবার ছিলো বিশ্ব পর্যটন দিবস। অথচ প্রাচ্যের ভেনিস খ্যাত নগরীতে এই দিনটি পালনে কোন কর্মসুচী পালন করেনি জেলা প্রশাসন। এমনিতেই প্রচার-প্রচারনার অভাবে পর্যটন শিল্পের অপর সম্ভাবনা থাকা সত্বেও পর্যটক আসে না নগরীতে। তার উপর দিনটি পালনে কোন কর্মসূচী না নেয়ায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
বরিশাল বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসন সহ সংগঠনগুলোকে উদাসীনতায় বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী বরিশালের সন্তান হওয়ায় কোন উন্নয়ন হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। এমনকি মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপির নিজের শহরেও বিশেষ এই দিবসটিতে কোন কর্মসূচী না থাকায় অনেকের কাছেই প্রশ্ন বিদ্ধ করেছে। ধান, নদী, খাল বিধৌত বরিশাল বিভাগের রূপে মুগ্ধ হয়ে কবি জীবনানন্দ দাস লিখেছিলেন আবার আসিব ফিরে……… এই ধানসিড়ি নদীটির তীরে এই বাংলায়। সেই কবির স্মৃতি বিজরিত যাদুঘর রয়েছে বরিশাল নগরীতে। বিশ্ব বিখ্যাত সমুদ্র সৈকত সাগরকন্যা কুয়াকাটা রয়েছে এই বিভাগেই। আরো আছে বাংলার বাঘ খ্যাত শের ই বাংলার স্মৃতি যাদুঘর বানারীপাড়ার চাখারে। আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো….. বিখ্যাত এই গানের সুরকার শহীদ আলতাফ মাহমুদের স্মৃতি রয়েছে এখানে। তার জন্মভূমি বরিশালের মুলাদী। এই শহরে রয়েছে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত প্রতিষ্ঠিত বিএম কলেজ বরিশালে আগৈলঝাড়ায় রয়েছে ভারতবর্ষের বিখ্যাত কাব্য মণষা মঙ্গল কাব্যের রচয়ীতা বিজয়গুপ্তের গৈলার মনষা মন্দির। উপ মহাদেশের ঐতিহ্যবাহী নগরীর মহা-শশ্মান। এছাড়া শিক্ষানুরাগী আরজ আলী মাতব্বরের স্মৃতি, ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের লড়াকু সৈনিক চারণ কবি মুকুন্দ দাসের স্মৃতি সহ অনেক বিখ্যাত ব্যাক্তি ঐতিহাসিক নিদর্শন সহ বিভিন্ন নৈসর্গিক সৌন্দর্য মন্ডিত স্থান। বিশ্ব পর্যটন দিবসে গতকাল সুযোগ ছিল ঐসব সম্ভাবনাময় স্থানগুলোর বিকাশে প্রচারনা সহ অন্যান্য কর্মসূচী পালনের মাধ্যমে পর্যটন খাতের অগ্রগতি। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে বরিশাল প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি মানবেন্দ্র বটব্যাল জানান, পর্যটন বিভাগ কোন অফিস না থাকা, প্রশাসন থেকে উদ্যোগের অভাবে প্রচার বিমুখ রয়ে গেছে শহরে। তাছাড়া তিনি দূরূহ যোগাযোগ ব্যবস্থার কারনে কুয়াকাটা এবং বরিশালের দর্শনীয় স্থানগুলো জনসম্মুখে তুলে ধরার কোন উদ্যোগ না থাকায় বরিশালে দিবসটিতে তেমন সাড়া পড়েনি। বিভাগীয় কমিশনার মোঃ গাউস এ বিষয়ে জানান, পর্যটন বিভাগ থেকে কোন লোক না আসা এবং বরিশালে পর্যটনের কোন অফিস না থাকার কারনে শহরে কোন কর্মসূচী ছিল না। তবে বিভাগের অন্যান্য জেলা গুলোতে দিবসটি পালন করা হয়েছে বরে তিনি জানান।