ভোলায় দোকান ঘর নিয়ে ২ গ্রুপের মধ্যে হট্টগোল

ভোলা অফিস ॥ ভোলা শহরের প্রাণ কেন্দ্র বাংলাস্কুল মোড়ের একটি দোকান ঘরের মালিকানা নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে হট্টগোল ও উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। ঘরের একাংশের মালিকদের না জানিয়ে গতকাল শনিবার সকালে বেঙ্গল মেশিনারীজ নামের ওই দোকানের মধ্যে পাকা পিলার করতে গেলে এই উত্তেজনা দেখা দেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বিরোধীয় দোকানটি বর্তমানে ভোলার পৌরসভার জিম্মায় রাখা হয়েছে। বিরোধ মিমাংশার পর পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
সরেজমিনে জানা যায়, ভোলা শহরের বাংলাস্কুল মোড়ের (পুলিশ আইল্যান্ডের পশ্চিম পাশের) সাবেক ভোলা গ্লাস হাউজ যা বর্তমানে বেঙ্গল মেশিনারীজ নামে ব্যবসা চলছে। গতকাল সকালে ওই দোকান ঘরের মধ্যে পাকা পিলার করতে গেলে বেঙ্গল মেশিনারীজের মালিক রিপন পাল ও ঘরের একাংশের মালিক দাবিদার অলক পাল গ্রুপের মধ্যে হট্টগোল দেখা সৃষ্টি হয়।
লিখিত এক অভিযোগে অলক পাল জানান, চরজংলা মৌজার এস এ ২৭৬ নং খতিয়ানের ১১০৯ দাগের এক শতাংশ জমির উপর তার দাদা তরনীকান্ত পাল দোকান ঘর নির্মাণ করে ব্যবসা করতেন। তার মৃত্যুতে অলক পালের বাবা কমলাকান্ত পাল ও চাচা বিমল কুমার পাল মালিক হয়ে ব্যবসা করেছেন। পাঁচ বছর আগে তার চাচাতো বোনের জামাই রিপন পাল ঘরটি ভাড়া নিয়ে বেঙ্গল মেশিনারীজ নামের ব্যবসা শুরু করেন। রিপন পাল তাদের ঘরের ভাড়া না দিয়ে উল্টো ঘর ছেড়ে দেওয়ার জন্য ক্যাডার দিয়ে হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন। এছাড়া ঘরটি আত্মসাতের উদ্দেশ্যে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র শুরু করে দেন। তাদের ঘর ছেড়ে দেওয়ার জন্য পৌর মেয়র, স্থানীয় কাউন্সিলর সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ মিমাংসা করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন।
লিখিত অভিযোগে আরো বলা হয়, গতকাল শনিবার ঘরের বকেয়া ভাড়া চাইতে গেলে রিপন পাল ভাড়া দিতে অস্বীকৃতি জানান এবং এক পর্যায়ে অলক পাল ও তার ভাইদের মারধোর করে। এ খবর পেয়ে অলকের বৃদ্ধা মা, স্ত্রীসহ পরিবারের নারীরা আসলে তাদেরকে লাঞ্চিত করা হয়। বিষয়টি তাৎক্ষণিক পৌর মেয়র মোহাঃ মনিরুজ্জাম মনিরের হস্তক্ষেপে স্থানীয় কাউন্সিল মোঃ শাহে আলম ঘরে তালা মেরে তাদের জিম্মায় রাখেন।
এ বিষয়ে বেঙ্গল মেশিনারীজের মালিক রিপন পাল অলক ও তার পরিবারের লোকজনকে মারধরো কথা অস্বীকার করে বলেন, পৌরসভার ড্রেন নির্মাণের জন্য রাস্তার পাশ থেকে ঘরটি ৩ ফুট সরাতে হবে। তাই স্থানীয় কাউন্সিলরের নির্দেশে সার্টার লাগানের জন্য গতকাল সকাল থেকে পিলার নির্মাণের কাজ শুরু করেন। এসময় অলক পাল গ্রুপের লোকজন তার দোকানের মধ্যে অনাধিকার প্রবেশ করে তাকে লাঞ্চিত করেন। তিনি আরো জানান, ওই ঘরের জমিটি ভিপি সম্পত্তি। এ নিয়ে আদালতে মামলা বিচারাধীন আছে। আদালত জমির মালিকানা ঠিক করবেন। সরকারের পক্ষে (ভিপির) রয়েছেন বলেও তিনি জানান।
ভোলা পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল মো. শাহে আলম জানান, বিরোধীয় ঘরটি বর্তমানে পৌরসভার জিম্মায় আছে। সন্ধ্যার পর পৌর মেয়র বসে বিষয়টি মিমাংশা করবেন।