ভোলার নতুন প্লান্ট থেকে জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু

ভোলা অফিস ॥ ভোলা বোরহানউদ্দিনের ২২৫ মেগাওয়াট নতুন বিদ্যুৎ প্লান্ট থেকে জাতীয় গ্রীডে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়েছে। গতকাল দুপুর ১২ টা ২৯ মিনিট থেকে ১৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ শুরু হয়। এর মধ্যে দিয়ে শাহবাজপুর গ্যাস দিয়ে উৎপাদিত বিদ্যুৎ ভোলার পর গ্রিডের মাধ্যমে সারাদেশে ছড়িয়ে গেছে। এছাড়া দেশের একমাত্র দ্বীপজেলা ভোলা প্রথম বারের মতো জাতীয় গ্রিডের যুক্ত হলো।
ভোলা ২২৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্লান্টের প্রকল্প পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মো. হারুন উর রশিদ জানিয়েছেন, গত কয়েকদিন ধরেই ধারাবাহিকভাবে জাতীয় গ্রিডে পরীক্ষা মূলক বিদ্যুৎ সরবরাহের কাজ চলছিল। বৃহস্পতিবার দুপুরে ২টি গ্যাস টারবাইন জেনারেটর থেকে ১৪০ মেগাওয়াট (৭০+৭০) বিদ্যুৎ ফুল লোডে গ্রিডে সরবরাহ করা হয়। প্লান্টের বাকী একটি ইউনিট (স্টিম টারবাইন) আগামী সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই উৎপাদন শুরু করবে।
তিনি আরো জানান, ২০১৩ সালে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ভোলার বোরহানউদ্দিনে বিদ্যুৎপ্লান্ট নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এর মধ্যে প্রায় ১৬’শ কোটি টাকা প্লান্টের কাজে এবং বাকী টাকা অবকাঠামো উন্নয়নে ব্যয় হয়। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের তত্বাবধায়নে ইসলামি ডেভলপমেন্ট ব্যাংক (আইডিবি) অর্থায়নে চায়না সরকারি প্রতিষ্ঠান চেংডা ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানী প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। এতে ৬৫ মেগাওয়াটের ২টি গ্যাস টারবাইন জেনারেটর (জিটিজি) ও একটি স্টিম টারবাইন (এসটি) ইউনিট নির্মাণ করা হয়েছে। জিটি ইঞ্জিন ভালো মানের হওয়ায় গতকাল ফুল লোডের সময় ২টি ইউনিটে ৭০ মেগাওয়াট করে মোট ১৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়েছে। এখন থেকে প্লান্টের সিম্পোল সাইকেলের ২টি ইউনিটের ফুল লোড অব্যাহত থাকবে বলেও প্রকল্প পরিচালক জানিয়েছেন।
এর আগে দ্বীপজেলা ভোলাকে জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করতে এবং নতুন প্লান্টের বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করার জন্য প্রায় ৬৩ কিলোমিটার ২৩০ কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চাল লাইন স্থাপন করা হয়েছে। নিরবিছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে তেঁতুলিয়া ও কালাবদর নদীর ওপর প্রায় ৬ কি.মি. প্রশস্ত এলাকায় ৭টি উঁচু টাওয়ার স্থাপন করা হয়েছে। এসব টাওয়ারের উচ্চতা ৪৩০ ফুট। ৩৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত উচ্চক্ষমতার ডাবল সার্কিটের এসব লাইন দিয়ে ৭০০ মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ সঞ্চালণ করা যাবে।