ভান্ডারিয়ায় মোবাইলে ডেকে নিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ পিরোজপুরের ভান্ডরিয়ায় গত শরিবার রাত ১০ টার দিকে বখতিয়ার শরীফ (৪৩) নামে এক যুবককে উপর্যুপরি কুপিয়ে গুররুতর জখম করেছে প্রতিপক্ষ। তাকে প্রথমে ভান্ডারিয়া ও পরে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। আহত বখতিয়ার শরিফের স্ত্রী রেশমা বেগম জানান, শনিবার রাতে স্থানীয় ইকবাল মল্লিক মোবাইল ফোনে ৫ বার কল দিয়ে আমার স্বামীকে তার শ্বশুর বাড়ি (ইকবালের) দাওয়াত খাওয়ার কথা বলে পাশ্ববর্তী উপজেলা রাজাপুরের কানুদাশকাঠী ইউনিয়নের হাজী বাড়ি সংলগ্ন ইউনুস হাওলাদারের বাড়ি ডেকে নেয়। এসময় ইকবালের নেতৃত্বে তার ছোট ভাই রাজিব মল্লিক, ভাগ্নে সাগর, স্ত্রী তামান্ন বেগম সহ একটি সন্ত্রাসী দল তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এসময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক জখম হয়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে ভান্ডারিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। রেশমা বেগম আরো জানান, ইকবাল মাদক ও অস্ত্র সহ বিভিন্ন অবৈধ ব্যবসার সাথে জড়িত। মানিক ও জসিম জোড়া খুন, অস্ত্র ও মাদক সহ ১৬ মামলার আসামী ইকবাল। এ বিষয়ে রাজাপুর থানা ওসি বলেন, ‘এ ঘটনার পর পুলিশ একাধিকবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তবে কোনো অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ ভান্ডারিয়া থানা ওসি মো. কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘হামলাকারী আর আহত দুজনই মাদক ব্যবসায়ী। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ‘ বর্তমানে আহত বখতিয়ার শরিফ আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভার্তি আছে। খোঁজাখুঁজি করে পাশ্ববর্তি ইদ্রিস হাওলাদারের বাগান থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে। প্রথমে তাকে ভান্ডারিয়া হাসপাতালে এবং পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।