ভাটিখানার নিঁখোজ ব্যবসায়ীর সন্ধান মেলেনি ১২ দিনেও

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল নগরীর ভাটিখানা এলাকা থেকে রহস্যজনকভাবে নিঁখোজ হওয়ার ১২ দিন পরও সন্ধান মেলেনি ষ্টুডিও ব্যবসায়ী দিপক বেপারীর (৩২)। নিঁখোজ দিপকের স্ত্রী, মা-বাবা ও ভাই গতকাল বৃহস্পতিবার বরিশাল প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন। এসময় কান্নায় বারবার মুর্ছা যান তারা। মাত্র আড়াই মাস আগে দিপক বিয়ে করেছিল। স্বামীকে নিয়ে অজানা আশংকায় স্ত্রী স্বর্ণা সাংবাদিক সম্মেলনে অবিরাম কেঁদেছেন।
দিপকের ছোট ভাই সুজন বেপারী জানান, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ট্রাকিং করে নিঁখোজ হওয়ার ৪দিন পর ২৩ ফেব্রুয়ারী কাশীপুর এলাকার রাজ্জাক নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে দিপকের ব্যক্তিগত মুঠোফোনটি উদ্ধার করে। রাজ্জাক পুলিশের কাছে দাবি করে সে একই এলাকার রিপন নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে মুঠোফোনটি কিনেছে। কাউনিয়া থানা পুলিশ উভয়কে আটক করে। পরে জিজ্ঞাসাবাদ রাজ্জাক পুলিশকে জানায়, রিপন নির্দোষ, সে (রাজ্জাক) মুঠোফোনটি নতুন বাজার এলাকায় কুড়িয়ে পেয়েছে।
দিপক বেপারীর পরিবারের অভিযোগ, নিঁখোজ হওয়ার আধ ঘন্টা আগে দিপক মুঠোফোনে রেহানা ও নিপা নামক দুই নারীর সঙ্গে একাধিকার কথা বলেছে। রেহানা দিপকের ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান সংলগ্ন টেইলার্সের কর্মচারী। পুলিশ তাকে দায়সারাভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। দিপক নিঁখোজের ঘটনায় সাধারন ডায়েরীর তদন্ত করছেন কাউনিয়া থানার উপ পরিদর্শক মীর শহীদুল ইসলাম।
পরিবারের অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে এসআই মীর শহিদুল বলেন, দিপকের মুঠোফোনটি রাজ্জাক রাস্তায় কুড়িয়ে পেয়েছেন। অসংলগ্ন তথ্য দেওয়ার পরও রাজ্জাককে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ না করার কারন জানতে চাইলে এসআই মীর শহীদুল ব্যস্ততার অজুহাত দেখিয়ে বলেন, ‘এ বিষয়ে কথা বলতে হলে থানায় আসতে হবে’।
উল্লেখ্য, গত ১৯ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ভাটিখানা বাজারে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখে রহস্যজনকভাবে নিঁখোজ হয়েছে স্টুডিও ব্যবসায়ী দিপক ব্যাপারী। সে বরিশাল সদর উপজেলার শায়েস্তাবাদ ইউনিয়নের দিলীপ বেপারীর ছেলে।