বেতন-ভাতার দাবিতে আনসারদের কমান্ড্যান্টের কার্যালয় ঘেরাও এবং বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ তিন মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধ না করে দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করে নেয়ায় বিক্ষোভ মিছিল ও জেলা আনসার কমান্ড্যান্ট এর কার্যালয় ঘেরাও করেছে আনসার সদস্যরা। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর কাশিপুর জেলা আনসার কমান্ড্যান্ট কার্যালয়ে এই ঘটনার পর বকেয়া বেতন দেয়ার আশ্বাসে আপাতত স্থগিত করেন আনসার সদস্যরা।
আন্দোলনকারী আনসার সদস্য মিরাজ, সুজন ও মিন্টু জানান, বিএনপি-জামায়াতের অবরোধ কর্মসূচী শুরুর পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে জেলার ১০০ আনসার সদস্য মহানগরী সহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সাথে দায়িত্ব পালন করে। গত তিন মাস তারা দায়িত্ব পালন করলেও এখন পর্যন্ত তাদেরকে দেয়া হয়নি কোন প্রকার বেতন-ভাতা। এতে তাদের বকেয়া বেতনের পরিমান দাড়িয়েছে ২৭ লক্ষ ৬৭ হাজার ৪৮০ টাকা। এমনকি তাদের বকেয়া বেগত-ভাতা পরিশোধ না করেই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের এক আদেশে গতকাল বুধবার থেকে আনসার সদস্যদের দায়িত্ব পালন থেকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। আনসার সদস্যদের অভিযোগ তাদের বকেয়া বেতন পরিশোধ না করতেই হঠাৎ করে আনসার সদস্যদের প্রত্যাহার করে নিয়েছে।
আর এই কারনে তিন মাসের প্রাপ্ত বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবীতে সকালে তারা জেলা আনসার কমান্ড্যান্ট এর কার্যালয় ঘেরাও করে। পরবর্তীতে সেখানে বিক্ষোভ মিছিল করে।
জেলা আনসার কমান্ডার কামাল হোসেন জানান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে গত ২৩ ফেব্রুয়ারী থেকে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের সাথে দায়িত্ব পালন করে আনসার। এর মধ্যে ৬ জন কমান্ডার এবং ৯৪ জন সদস্য। এদের মধ্যে কমান্ডারদের প্রতিদিন ৩৫০ টাকা এবং সদস্যদের ৩২০ টাকা করে সম্মানি ধার্য্য করা হয়। কিন্তু তাদের সদস্যরা দায়িত্ব পালন থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত কোন বেতন দেয়া হয়নি। তিনি জানান, ইতোমধ্যে বকেয়া বেতন দেয়ায় জন্য দু’বার প্রধান কার্যালয়ে চিঠি লিখেছেন। কিন্তু সেখান থেকে চিঠির কোন উত্তর পাননি। তবে জেলা আনসার কমান্ডার আরো জানান, ঐ ১শ জন ছাড়া মহাসড়কে যে সদস্যরা দায়িত্ব পালন করেছে তাদের বেতন নিয়মিত দেয়া হয়েছে। যারা পাননি তাদের বেতনও পরিশোধ করা হবে। তবে হয়তো একটু দেরি হতে পারে বলে জানান তিনি।