বিয়ের জাল রেজিষ্ট্রির নালিশির তদন্ত দুদককে

পরিবর্তন ডেক্স॥ বাকেরগঞ্জে জাল রেজিষ্ট্রির মাধ্যমে বিবাহ দেয়ার নালিশি অভিযোগে কাজি সহ ৭ জনের বিরুদ্ধে দুদককে নালিশি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল রোববার আঃ ছত্তার মৃধার দায়ের করা নালিশি অভিযোগে সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিচারক মোঃ মতিয়ার দুদকে প্রেরনের নির্দেশ সহ দুদককে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন। নালিশিতে উল্লেখিত অভিযুক্তরা হলো পটুয়াখালীর মরিচ বুনিয়ার আঃ ছত্তার প্যাদার পুত্র একেএম মনিরুজ্জামন জাকির, করম আলী মৃধার পুত্র রফিক মৃধা, বাকেরগঞ্জের কালিগঞ্জ বাজারের কাজী শফিউল বশার, আলিয়াপুরের মৃত ফজলে আলী বিশ্বাসের পুত্র শহিদুল আলম বিশ্বাস, মাওলানা আবদুল্লাহ খানের পুত্র জাকির হোসেন, কালিগঞ্জের মৃত মুক্তার আলীর পুত্র লিটন হাওলাদার, পটুয়াখালীর উত্তর বাজার খোলার আঃ রহমান ঘরামির পুত্র নিজাম ঘরামি। ছত্তার মৃধা নালিশিতে উল্লেখ করেন জাকির তার সৎ বোনের ছেলে ও অন্যান্য অভিযুক্তরা তার পরিচিতি। বাদী ও বিবাদীদের মধ্যে পারিবারিক দ্বন্দ্ব থাকে। এর জেরে ২০১২ সালের ১০ আগষ্ট বাদীর কন্যা সোনিয়াকে কালিগঞ্জ রেজিষ্ট্রি অফিসে নিয়ে অন্যান্যদের সহায়তায় জাল কাবিননামা তৈরি করে বিবাহ করে জাকির। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করতে বাকেরগঞ্জ থানায় গেলে পুলিশ মামলা নেয় নি। তাই পরে আদালতে মামলা করলে বিচারক ওই নির্দেশ দেন।