বিসিসির ড্রেন ও রাস্তা দখল করে ভবন র্নিমাণের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ নগরীর ২১নং ওয়ার্ডের দেবকুমার লেন সড়কে সিটি কর্পোরেশনের রাস্তা ও ড্রেনের উপর ইমারত নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরফলে রাস্তা সরু হয়ে গেছে এবং স্বাভাবিক যানবাহন চলাচলে বিঘœ ঘটছে। উক্ত সড়কের কারণে ভূক্তভোগী প্রায় ১৬টি পরিবার অভিযোগ করে বলে রাস্তা ও ড্রেন দখল করে ইমারত র্নিমাণ করায় কোন গাড়ি বা ভারি যানবাহন চলাচল করতে পারবেনা। এঘটনায় ২১নং ওয়ার্ডের দেবকুমার লেন সড়কে ওই বাসিন্দারা সিটি কর্পোরেশনের নিয়ম অনুযায়ী রাস্তার পাশে দূরত্ব বজায় না রেখে ইমারত র্নিমাণ করার চেষ্টার বিরুদ্ধে অভিযোগ পত্র দেয়। যা ছিলো বরিশাল সিটি কর্পোরেশন বরাবর । অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করা হয় ২১নং ওয়ার্ডের দেবকুমার লেন সড়কের বাসিন্দা এ্যাডঃ শামছুল হক সিটি কর্পোরেশনের রাস্তা ও ড্রেনের উপর ইমারত র্নিমাণ কাজ করছে যা কর্পোরেশনের নিয়ম বহির্ভূত। এতে স্থানীয়রা বাঁধা দিলেও তার কোন প্রকার টনক নড়েনি। এমনকি স্থানীয় কাউন্সিলর কাজ বন্ধ রাখতে বললেও তার কথা না মেনে বর্তমানে ঐ কাজ চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে এমনটাই অভিয্গো ভূক্তভোগীদের। এনিয়ে এলাকাবাসী বাঁধা দিলে তাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালজ করে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। পরবর্তীতে গত ২৮ ফেব্রুয়ারী স্থানীয়রা বরিশাল সিটি কর্পোরেশন বরাবর একটি অভিযোগ পত্র প্রদান করে। এরই পরিপেক্ষিতে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এ্যাডঃ শামছুল হক বরাবর র্নিমাণ কাজ বন্ধ রেখে সিটি কর্পোরেশনের অনুমোদিত প¬ান দাখিল প্রসঙ্গে একটি নোটিশ গত ৩ মার্চ জারি করে। এবং উক্ত নোটিশে উল্লেখ করা হয় নোটিশ প্রাপ্তির সাথে সাথে কাজ বন্ধ রেখে ০৭দিনের মধ্যে সিটি কর্পোরেশনের প্ল¬ান উপস্থাপনের জন্য। এবং উপরোক্ত আদেশ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে বিসিসি এর বিধান সহ বাংলাদেশ দন্ডবিধি আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে গতকাল সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে এ্যাডঃ শামছুল হক তার র্নিমাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এ বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি নোটিশ পেয়েছি। এবং আমি সিটি কর্পোরেশনে জবাবও দিয়েছি। তিনি আরো বলেন, আমি আমার জমিতেই ইমারত র্নিমাণ করেছি। এটা সিটি কর্পোরেশনের নয়। স্থানীয় কিছু মহল নিজেদের স্বার্থে এসব ঘটনা রটাচ্ছে। এদিকে যারা এর প্রতিবাদ করছে তারা জানিয়েছেন প্রতিবাদ করতে গিয়ে সর্বদা বিভিন্ন মামলার আতঙ্ক বিরাজ করছে তাদের মধ্যে। কারণ শামছুল হক সর্বদা তাদের দেখিয়ে দেয়া এবং মামলা দেয়ার ভয় দেখাচ্ছেন। তবে প্রশ্ন থাকে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে নোটিশ প্রাপ্তির সাথে সাথে কাজ বন্ধ রাখতে বললেও একজন আইনের লোক হয়ে কিভাবে সে তার র্নিমাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এবিষয়ে স্থানীয়রা জানায়, তার ঐ ইমারত র্নিমাণের ফলে সড়কটি দিয়ে কোন প্রকার যান চলাচল করতে পারবেনা। এছাড়া ড্রেনযুক্ত এই র্নিমাণ কাজ সম্পূর্ণ বেআইনী বলেও তারা উল্লেখ করেন।