বিসিসির কর ও পানির ভুলে ভরা বিলে ভোগান্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের পানি ও হোল্ডিং কর পরিশোধ করতে গিয়ে বিপাকে পরেছে গ্রাহকরা। হোল্ডিং নম্বর ঠিক থাকলেও গ্রাহককে দেয়া বিলে কপিতে নাম, পিতার নামের মিল থাকে না। তাই গ্রাহকদের বিল জমা দেয়া নিয়ে বিভ্রাটে পড়তে হয়। এছাড়া গত ২ বছরে পানির বিল পায়নি এমন গ্রাহকের দেখাও মিলছে বরিশাল নগর ভবনে। গতকাল রোববার দুপুরে নগর ভবনের কর ও পানি শাখায় একাধিক গ্রাহক এমন অভিযোগ করেন। সংশ্লিষ্ট শাখায় প্রতিদিন গ্রাহকরা ভুলে ভরা বিল সংশোধনের জন্য ভীড় করে।
ব্যাংকিং কার্যক্রম, চাকুরি, পাসপোর্ট, জমি-দালান বিক্রয়, মামলা পরিচালনাসহ বিভিন্ন কাজে কর ও পানি বিলের রসিদ গুরুত্বপূর্ন প্রমানপত্র স্বরুপ ব্যবহার করা হয়। এই জন্য বিলে ভুল গ্রাহকদের বাড়তি ঝামেলায় ফেলে।
নগরীর কাজীপারার বাসিন্দা মালেক হাওলাদার জানান, তার বাসার হোল্ডিং নম্বর ০২০৫। কিন্তু পানির বিলে রয়েছে ০৫০২, আবার মালেক হাওলাদারের পরিবর্তে লেখা হয়েছে খালেক হাওলাদার।
সাগরদী এলাকার বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম মোল্লা জানান, তার পিতার নাম মান্নান মোল্লা। কিন্তু কর রশিদে লেখা রয়েছে হান্নান মোল্লা।
নগরীর ১৩ নং ওয়ার্ডের সিএন্ডবি পুল এলাকার বাসিন্দা সাইফ ইবনে রফিক জানান, গত ২ বছর ধরে তিনি পানির বিল না পেয়ে নিজেই এখানে এসেছেন বিল নেয়ার জন্য। এসময় আরো একাধিক গ্রাহক এ ধরনের অসঙ্গতির কথা জানান।
সংস্লিষ্ট শাখায় কর্মকর্তারা জানান, নিয়মিত বেতন ভাতা না পাওয়ায় কর্মীরা দায়িত্বের প্রতি উদাসীন থাকে। তাই ভুল ত্রুটি হচ্ছে।
সিটি কর্পোরেশন সূত্রে জানাগেছে ,বর্তমানে নগরীর ৩০ টি ওয়ার্ডে মোট পানির সংযোগ নেয়া গ্রাহকের সংখ্যা ১৪ হাজার ১১০। ২৪০ কিলোমিটার পাইপ লাইনের মাধ্যমে এ সংযোগ দেয়া হয়েছে। প্রতিদিন পর্যায়ক্রমে ২-৩ ঘন্টা করে বিভিন্ন ওয়ার্ডে পানি সরবরাহ করা হয়।এছাড়া সড়কে ৩২০ টি কল, ১ টি ওয়াটার ট্যাঙ্ক ও ৭ টি ওভারহেড ট্যাঙ্কের মাধ্যমে নগরীতে পানি সরবরাহ করা হচ্ছে।
সিটি কর্পোরেশনের পানি শাখার নির্বাহী প্রকৌশলী কাজী মনিরুল ইসলাম স্বপন আজকের পরিবর্তনকে জানান, ভুল বিল তৈরীর বিষয়টি কিছুদিন যাবৎ ধরা পড়ছে। গ্রাহকদের নাম, ঠিকানা ও হোল্ডিং নম্বর কম্পিউটার ও লেজারে সঠিক ভাবে সমন্বয় করা হয়নি। বিষয়টি আমরা জানতে পেরে নতুন করে কম্পিউটার ও লেজারে সংরক্ষণ করেছি। আগামী ৬ মাসের মধ্যে ঠিক হয়ে যাবে।