বিসিসির আরআইদের কর্মের তদন্ত শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের সড়ক পরিদর্শকদের বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তি এবং নানা দুর্নীতির ঘটনায় তদন্ত কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল রবিবার তদন্ত কমিটির সদস্যরা অভিযুক্ত আরআইদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন।
এদিকে চাকুরী বাঁচাতে দৌড় ঝাঁপ শুরু করে দিয়েছে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত হওয়া আরআই জাহাঙ্গীর হোসেন, সাজ্জাদ হোসেন এবং শাস্তিমূলক বদলী হওয়া রেজাউল কবির। তদন্ত কমিটির পাশাপাশি বিসিসি কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করতে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের কাছে ধর্ণা দিচ্ছে দুর্নীতিবাজ আরআইরা। এমনকি তাদের তিনজের পাশাপাশি বাকি দুই আরাআই বাবু এবং সালাউদ্দিনও নিজেদের ঘুষ বাণিজ্য এবং দুর্নীতি ধামা চাঁপা দিতে ব্যস্ত সময় পার করছে।
সূত্রমতে, ফুটপাত দখল মুক্ত, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ সহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে তদারকির দায়িত্ব আরআইদের। কিন্তু এ শাখায় দায়িত্বরত আরআই জাহাঙ্গীর হোসেন, রেজাউল কবির, সাজ্জাদ হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবু এবং সালাউদ্দিন সেই ক্ষমতার অপব্যবহার করে দুর্নীতির আতুড় ঘর বানিয়ে রেখেছে বিসিসি’র আরআই শাখাকে। বিশেষ করে ফুটপাতে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা থেকে চাঁদাবাজী, প্লান বিহীন অবৈধ ভাবে বাড়ি, ভবন কিংবা স্থাপনা নির্মাণে সহযোগিতা করে মোটা অংকের উৎকোচ আদায় করাটাই তাদের প্রধান লক্ষ্য। তবে ঘুষ হিসেবে ১০ টাকাও ছাড় দিচ্ছেন না তারা। যা দিয়ে ঘুষখোর আরআইদের ঘরের বাজারের খরজ সরবরাহ হয়ে থাকে। তবে ঘুষ বাণিজ্য করে গত কয়েক বছরে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন আরআইরা। তবে এদের মাঝে দুর্নীতির শীর্ষ স্থানে রয়েছেন জাহাঙ্গীর হোসেন, রেজাউল কবির ও সাজ্জাদ হোসেন। পাশাপাশি এই তিন আরআই নগর ভবনে আরআই শাখায় রাজনৈতিক গ্রুপ সৃষ্টি করেন।
শুধু তাই নয়, আরআই জাহাঙ্গীর হোসেন ও রেজাউল কবির’র বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে জালিয়াতির মাধ্যমে বিসিসি’র অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।
এদিকে কর্তৃপক্ষের চোখে ধুলা দিয়ে অপকর্ম করে বেড়ালেও অবশেষে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তি করে ফেসে গোলো দুর্নীতির শীর্ষ স্থানে থাকা আরআই জাহাঙ্গীর হোসেন, সাজ্জাদ হোসেন এবং রেজাউল কবির। এর মধ্যে রেজাউল কবিরকে শাস্তিমূলক পিওন পদে বদলী করা হলেও বাকি দু’জনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। তাছাড়া তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছেন বিসিসি কর্তৃপক্ষ। এর পর থেকেই চাকুরী বাঁচাতে মরিয়া হয়ে ওঠে বহিস্কৃত এবং শাস্তিপ্রাপ্ত তিন আড়াই সহ অপর দুই আরআই। রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ঘটনাটি ধামা চাঁপা দিতে ছুটছেন নিজ নিজ দলীয় শীর্ষ নেতাদের কাছে। এমনকি মোটা অংকের উৎকোচ দিতেও উল্লেখিত দুর্নীতিবাজরা প্রস্তুত রয়েছেন বলে নির্ভর যোগ্য সূত্র জানিয়েছে।
তবে বিসিসি কর্তৃপক্ষ আরআইদের অপকর্মের দায়ভার নিবেনা। যে কারনে দুর্নীতিবাজ আরআইদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনে ইতোপূর্বে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে দিয়েছেন। সে অনুযায়ী গতকাল রবিবার অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদ এবং তাদের জবানবন্দি গ্রহন করেছেন তদন্ত কমিটি। দু-একদিনের মধ্যেই এ বিষয়টি চূড়ান্ত করা হবে বলেও তদন্ত কমিটির একটি সূত্র নিশ্চিত করেছেন।