বিসিক শিল্পনগরী এলাকা ইয়াবা ও মাদক সেবীদের কাছে যেন স্বর্গরাজ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল বিসিক শিল্পনগরীতে অবাধে মাদক ব্যবসা ও চাঁদাবাজীর মহোৎসব চলছে । নগরীর দু পাশে গড়ে ওঠা বস্তি ও স্থানীয় কিছু বাসিন্দা এবং অবৈধ দখলদারদের প্রভাব বলয় ধরে রাখতে সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজরা এখন এই নগরীর একচ্ছত্র হর্তাকর্তা। কিছু প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় চলছে অবাধ মাদক ও চাঁদাবাজি । নগরীর নিয়ন্ত্রন এবং শিল্প কারখানার সুষ্ঠু পরিবেশ রক্ষায় কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসন যেন অসহায় হয়ে পড়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায় স্থানীয় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও মাদক ব্যবসায়ী খ্যাত মোমিন পিতা- বেলায়েত, সম্পদ, পিতা- মৃতঃ পুলিশ কামাল, ইমন পিতা- সোবাহান, রিপন, রাকিব পিতা খোকন, শাহাবুদ্দিন পিতা – বেলায়েত, সোহাগ পিতা- নুরুল ইসলাম, সুজন পিতা- কালাম খান, নাহিদ( রাজমিস্ত্রির কাজ করে ) সহ অনেকে রয়েছে এর নেতৃত্বে। এরা বিসিক এলাকায় কর্মরত সাধারণ শ্রমিকদের বিশেষ করে নারী শ্রমিকদের ওপর নানা ধরনের নির্যাতন ও অত্যাচার করে বলে অভিযোগ রয়েছে । এছাড়াও এই সন্ত্রাসীরা ইয়াবাসহ সকল ধরনের ব্যবসার সাথে জড়িত বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। তাদের অত্যাচারে সাধারণ মানুষ অতিষ্ট কিন্তু তাদের প্রভাবের কাছে সকলে জিম্মি। এই সকল মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীদের অন্যায় অত্যাচারের ভয়ে এদের বিরুদ্ধে আইনগত বা প্রতিবাদের সাহস কেউ করে না। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে বিসিক শিল্প নগরীর উন্নয়নমূলক কাজের অংশ হিসেবে ড্রেনেজ এর কাজ চলছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক ও কর্মচারীরা বিসিক এলাকায় থেকে নির্মান কাজ করে যাচ্ছে। চাঁদাবাজরা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিককে না পেয়ে শ্রমিকদের ওপর চড়াও এবং নির্মান কাজে বাঁধার সৃষ্টি করছে। শ্রমিকদের ব্যবহৃত মোবাইল, নির্মান কাজে ব্যবহৃত মালামাল চুরি সহ এহেন কোন কাজ নেই যা এই চক্র করছেনা। অপরদিকে বিসিক এলাকায় অবস্থিত মিলকারখানার শ্রমিকদের ওপর হামলা, নির্যাতন ও জোর করে তাদের কাছে চাঁদা আদায় নিত্য নৈমিত্তিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ সমস্ত ঘটনার কোন প্রতিবাদ বা বিচার চাওয়ার কোন স্থান শ্রমিকদের নেই।