বিশ্ব কবির দৃষ্টান্ত সকল কর্মে

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সাহিত্য কর্মের পাশাপাশি সমাজ সংস্কার, শিক্ষা বিস্তার, কৃষি উন্নয়ন সহ বিভিন্ন কর্মকান্ডে সারাজীবন নিজেকে সক্রিয় রেখে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। “আমার যে দিন ভেসে গেছে চোখের জলে, তারি ছায়া পড়েছে শ্রাবন গগন তল”। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৫ তম প্রয়াণ দিবস উদযাপনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় নগরীর অশ্বিনী কুমার টাউন হলে জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদ বরিশাল শাখার আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি নজরুল ইসলাম চুন্নুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক ড. গাজী মোঃ সাইফুজ্জামান। অনুষ্ঠানের উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক জিয়াউল হক। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৫ তম প্রয়াণ দিবস অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সাংস্কৃতিজন নিখিল সেন ও মীর মুজতবা আলী। আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের পছন্দের ঋতু ছিল বর্ষা। তিনি বর্ষাকে নবরূপেও আবিষ্কার করেছিলেন। সেই প্রিয় ঋতুতেই চির বিদায় নিয়ে ছিলেন আধুনিক বাঙালির রুচির নির্মাতা বাঙ্গালির প্রতিটি মূহুর্তের আবেগের ঘনিষ্ট সঙ্গী কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। বাংলা সাহিত্য, সংগীত ও চিত্রকরা রবীন্দ্রনাথের অতুলনীয় প্রতিভার স্পর্শে রবির কিরনের মতোই দীপ্তমান হয়ে উঠছিল। তার কালজয়ী অমূল্য রচনা সম্ভার মানবতার জয়গানে চিরভাস্বর। প্রায় একক কৃতিত্বে তিনি বাংলা সাহিত্য সম্ভার পৌছে দিয়েছিল বিশ্ব দরবারে। এ সময় বক্তারা আরও বলেন, বিশ্ব কবি বলতেন তরুন সমাজকে বিজ্ঞান শিক্ষায় শিক্ষিত কর। তা হলে তাদেরকে আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব হবে। আলোচনা সভা শেষে রবীন্দ্রনাথ স্মরণে সংগঠনের কর্মীদের পরিবেশনায় গান, নৃত্য, আবৃত্তি পরিবেশিত হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) কাজী হোসনে আরা, সাংবাদিক এসএম ইকবাল, মুকুল দাস, মুক্তিযোদ্ধা আক্কাস হোসেন, ডাঃ সৈয়দ হাবিবুর রহমান, বিএম কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক স.ম ইমানুল হাকিম, অধ্যক্ষ তপংকর চক্রবর্তী, কাজল ঘোষ, সাংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদের সভাপতি শান্তি দাস, সংগঠনের সাধারন সম্পাদক দেব দুলাল গুহ, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গ প্রমুখ।