বিভাগের পাঁচ শ্রেষ্ঠ জয়ীতাকে দেয়া হল সংবর্ধনা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বর্ণাঢ্য আয়োজন ও উৎসবমুখর পরিবেশে জয়ীতা অন্বেষনে বাংলাদেশ শীর্ষক কার্যক্রমের আওতায় বিভাগীয় পর্যায়ে পাঁচজন শ্রেষ্ঠজয়ীতা নির্বাচিত করা হয়েছে। বিভাগীয় পর্যায়ে নির্বাচিত জয়ীতারা হলেন অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারী পিরোজপুর জেলার শাহিনুর বেগম, শিক্ষা ও চাকুরী ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী নারী গৌরনদীর প্রিয়াংকা পাল, সফল জননী নারী বরিশাল সদরের মোসাঃ হালিমা বেগম, নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করা নারী পিরোজপুরের নার্গিস জাহান, সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখা নারী উজিরপুরের গৌরি বিশ্বাস। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০ টায় নগরীর অশ্বিনী কুমার হলে বিভাগীয় প্রশাসনের আয়োজনে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের সহযোগিতায় সম্মাননা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। বিভাগীয় কমিশনার মোঃ গাউসের সভাপতিত্বে শ্রেষ্ঠ জয়ীতা নির্বাচন ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বরিশাল-২ আসনের সাংসদ এ্যাড. তালুকদার মোঃ ইউনুস। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোঃ নুরুল আলম, জেলা প্রশাসক ড. গাজী মোঃ সাইফুজ্জামান, পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক শামিমুল হক সিদ্দিকী, ভোলা জেলা প্রশাসক সেলিম উদ্দিন আহম্মেদ, মহিলা পরিষদের সভানেত্রী রাবেয়া খাতুন প্রমুখ। এসময় বক্তারা বলেন, জয়ীতা অন্বেষন বাংলাদেশ কার্যক্রমের বিভাগীয় পর্যায়ের বাছাই এটা ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। বাংলার নারীরা প্রতিকুলতা জয় করে জীবনযুদ্ধে জয়ী এই জয়ীতরা। সারা বাংলাদেশে নারী উন্নয়নে বিস্ময় সৃষ্টি করেছে এই বাংলাদেশ। এসময় তারা বলেন, নারীদের প্রতিটি পেশায় তাদের ভূমিকা অসামান্য। পূর্বের সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা নারীকে বিকশিত হতে দেইনি। কিন্তু বর্তমান সরকার এই নারীদের কাজকে সুমহান মর্যাদা দিয়ে উর্ধ্বে তুলে ধরেছে। তাই এখান থেকেই আমাদের শপথ গ্রহণ করতে হবে। নারীদের উপর কোন ধরণের নির্যাতন করা যাবে না। যার ফলে দেশ ও জাতি সুন্দরভাবে পরিচালিত হবে। এদিকে বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ জয়ীতা নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করেন জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা পঙ্কজ রায় চৌধুরী, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান, আভাসের নির্বাহী পরিচালক রাহিমা সুলতানা কাজল, নারী নেত্রী রাবেয়া খাতুন, সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) হুমায়ন কবির, বিএম কলেজের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান শাহ সাজেদা প্রমুখ। এদিকে বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ জয়ীতাদের সম্মাননাস্বরূপ ক্রেস্ট, সনদপত্র ও দুই হাজার টাকা দেয়া হয়। অন্যদিকে বিভাগীয় পর্যায়ে প্রতিদ্বন্দ্বী অন্য ৫ জয়ীতাকে সম্মাননা স্বরূপ ক্রেস্ট, সনদপত্র ও ২ হাজার টাকা দেয়া হয়। বিভাগীয় পর্যায়ে প্রতিদ্বন্দ্বী অন্যান্য জয়ীতারা হলেন- অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী ক্যাটাগরীতে শাহনাজ পারভীন, শিক্ষা ও চাকুরী ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী ক্যাটাগরীতে রেহানা বেগম, সফল জননী নারী ক্যাটাগরীতে আনোয়ারা হাকিম, নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করা নারী ক্যাটাগরিতে তাহমিনা বেগম, সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান ক্যাটাগরীতে হাসিনা মনি প্রমুখ।