বিদ্যুৎ ও পানির দাবীতে রুপাতলীতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বিদ্যুৎ ও পানির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল এবং সড়ক অবরোধ করেছে এলাকাবাসী। গতকাল শনিবার বেলা ১২টার দিকে নগরীর রূপাতলী চান্দুর মার্কেট এলাকায় ঘন্টা ব্যাপী এই কর্মসূচি পালন করেন তারা। এসময় রাস্তার দুই প্রান্তে শত শত যানবাহনের দীর্ঘ লাইন পড়ে যায়। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয় যাত্রী সাধারনের।
বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী জানায়, গত মঙ্গলবার সকাল থেকে নগরীর রূপাতলীর এলাকাধিন গাউছিয়া সড়ক, এ ওয়াহেদ সড়ক, আক্কেল আলী সড়ক, আয়েজ উদ্দিন আহম্মেদ সড়ক ও শের-ই-বাংলা সড়কের অধিকাংশ বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ হয়ে যায়। বিদ্যুৎ না থাকায় ঐ এলাকায় বন্ধ হয়ে যায় পানি সরবরাহ। এতে করে গত চার দিন বিদ্যুৎ এবং পানি বিহীন চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয় ঐসব এলাকার সহ¯্রাধীক পরিবারের।
এলাকাবাসী জানায়, এ বিষয়ে তারা একাধিকবার বিদ্যুৎ বিভাগের সাথে যোগাযোগ করেছেন। কিন্তু বিদ্যুৎ বিভাগের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা বিষয়টিতে গুরুত্ব দেয়নি। আর তাই বাধ্য হয়ে গত শনিবার বেলা ১২ টার দিকে এলাকাগুলোর সহ¯্রাধিক পরিবার বিদ্যুৎ এবং পানির জন্য রাস্তায় নেমে পড়ে। তারা ঢাকা-বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর, খুলনা, ভোলা যোগাযোগের প্রধান সড়কের চান্দুর মার্কেট নামক স্থানে সড়ক অবরোধ এবং বিক্ষোভ মিছিল করে। এসময় বিভিন্ন রুটের শত শত যানবাহন আটকে যায় রাস্তার দুই প্রান্তে। ভোগান্তিতে পড়েন যানবাহনের যাত্রীরা।
এদিকে খবর পেয়ে কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করে এবং প্রায় এক ঘন্টা প্রচেষ্টার পাশাপাশি সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলে আন্দোলনকারীরা শান্ত হয়। পরে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।
জানতে চাইলে বরিশাল ওয়েষ্ট জোন পাওয়ার ডিষ্টিবিউশন কোম্পানির বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১ এর ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সালেহ জানান, ওই এলাকায় একটি ট্রান্স মিটার ছিলো। মিটারটি বজ্রপাতে বিষ্ফোরিত হয়ে বিকল হয়ে পড়ে। তাদের সংরক্ষনে নতুন ট্রান্স মিটার না থাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ পূনঃস্থাপন সম্ভব হয়নি। তবে আজের (গতকাল) মধ্যে জরুরী ট্রান্সফর্মার দিয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।