বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির ভোটার না হওয়ায় আদালতে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির অভিভাবক পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় ইচ্ছুক প্রার্থীর নাম ভোটার তালিকা থেকে বাদ দেয়ায় ১০ জনকে বিবাদী করে আদালতে মামলা করা হয়েছে। ভোটার তালিকা নাম অন্তর্ভূক্তসহ প্রতিদ্বন্দ্বীতার আর্জি জানিয়ে গতকাল সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে নালিশী করা হয়। নালিশীর বিবাদীরা হলো, এ্যাডহক কমিটির সভাপতি সৈয়দ আনিচুর রহমান, শায়েস্তাবাদ মোয়াজ্জেম হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ সুলতান আহাম্মেদ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা শিক্ষা অফিসার, জেলা প্রশাসক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক ও মহাপরিচালক। নালিশীটি আমলে নিয়ে বিচারক শুনানীর জন্য অপেক্ষমান রেখেছেন। নালিশীতে কাজল বেগম উল্লেখ করেন, তিনি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর অভিভাবক সদস্য পদে প্রার্থী হয়ে পরিচালনা কমিটির নির্বাচন করতে আগ্রহী। বিবাদী আনিছুর রহমান ও সুলতান আহাম্মেদ বাদীকে প্রতিদ্বন্দ্বীতা না করার জন্য ভোটার তালিকা থেকে তার নাম বাদ দিয়ে তার মৃতঃ স্বামীর নাম উল্লেখ করেন। এ বিষয় অবগত হয়ে বাদী প্রবিধান মালা অনুযাযী তার নাম ভোটার তালিকায় দেওয়ার জন্য আবেদন করেন। বাদীর আবেদন উপেক্ষা করে আনিছুর ও সুলতান নিজেদের মত করে কমিটি গঠনের লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের অভিভাবক নয় এমন ব্যক্তিদের নাম উল্লেখ করে গত ২৫ সেপ্টেম্বর চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করেন এবং গত ১২ অক্টোবর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট চূড়ান্ত তালিকা জমা দেয়া হয়। এর প্রেক্ষিতে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য নিয়োগ করা হয়। তিনি ১১ নভেম্বর নির্বাচনের তারিখ ঘোষনা করেন। এ ঘটনায় কাজল তার নাম চূড়ান্ত ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করে নির্বাচনে অংশ গ্রহনের জন্য আবেদন জানিয়ে নালিশী করেন।