বিএম কলেজে রহস্যজনক অগ্নিকান্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ সরকারী ব্রজমোহন বিশ্ব বিদ্যালয় (বিএম) কলেজে ক্রীড়া অনুষ্ঠানের মঞ্চে অগ্নি সংযোগ করেছে দুর্বিত্তরা। গত শনিবার ভোর রাতে এই ঘটনার পরে র‌্যাব ও পুলিশ আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এসময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে এক রাউন্ড ফাকা গুলি করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছে কলেজের আবাসিক ছাত্ররা। অগ্নি সংযোগের ফলে অনুষ্ঠান শুরুতে বিলম্বের সৃষ্টি হয়েছে।
সূত্রমতে, বরিশাল সরকারী বিএম কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠান গতকাল শনিবার অনুষ্ঠিত হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু-এমপি ও বিশেষ অতিথি সাংসদ জেবুন্নেছা আফরোজা- এমপি।
প্রতক্ষদর্শী বিএম কলেজ কবি জিবনানন্দ দাস হলের কয়েকজন আবাসিক ছাত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়, ভোর রাতে একদল দুর্বৃত্ত ক্রীড়া অনুষ্ঠানের সাজানো মঞ্চের ব্যানার ও ডেকরেটরের কাপড়ে পেট্রোল ঢেলে অগ্নি সংযোগ করে। খবর পেয়ে প্রায় ১০ মিনিট পরে পুলিশ ও ছাত্রলীগের একটি অংশ ক্যাম্পাসে উপস্থিত হয়ে বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার আগেই আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এসময় ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় বলেও সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। তবে প্রশাসন কাউকে আটক করতে না পারলেও এক রাউন্ড ফাকা গুলি বর্ষন করেছে।
এছাড়া সকাল হওয়ার আগেই মঞ্চের পুড়ে যাওয়া কাপড় সরিয়ে নতুন কাপড় দিয়ে পূনরায় সাজানো হয়। এমনকি সকালে ব্যানারটিও পরিবর্তন করা হয়েছে।
বিএম কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফজলুল হক অগ্নিসংযোগের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, অনুষ্ঠান মঞ্চে অগ্নি সংযোগ কিংবা অগ্নিকান্ডের কোন ঘটনা ঘটেনি। কোন একটি পক্ষ এ নিয়ে গুজব ছড়িয়েছে।
এমনকি বিএম কলেজে কোন প্রকার অগ্নি সংযোগ কিংবা অগ্নি কান্ডের কোন খবর পাননি বলে দাবী করেছেন বরিশাল সদর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের সিনিয়র ষ্টেশন অফিসার মোহাম্মদ আলাউদ্দিন।
তকে কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাখাওয়াত হোসেন মুঠো ফোনে জানান, দুর থেকে ষ্টেজের দিকে কেউ বোতল নিক্ষেপ করেছিলো। এতে এক পাশে পড়ে থাকা কাপড়ের একটি টুকরোর আংশিক পুড়ে গেছে। তবে সেটা পেট্রোল বোমা কিনা জানা নেই। এছাড়া বিএম কলেজ ক্যাম্পাসে শুক্রবার রাত থেকে গতকাল শনিবার সকাল পর্যন্ত প্রশাসন ফাকা গুলি করেনি। কেউ গুলি করেছে এমন খবরও তারা পাননি বলে ওসি শাখাওয়াত হোসেন জানিয়েছেন।