বিএনপির কার্যালয়ের অন্ধকারের মুক্তি,জ্বলেছে আলো

রুবেল খান॥ অবশেষে খুললো বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপি কার্যালয়ের তালা। জ্বালানো হয়েছে জারাজীর্ন ও অন্ধকার কক্ষে আলো। বিএনপির নেতৃত্বাধিন ২০ দলীয় জোটের হরতাল ও লাগাতার অবরোধের ৯৪ দিন পর গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় তারা কার্যালয়ের তালা খুলে ভেতরে অবস্থান করেন।
এদিকে কার্যালয় খোলার পাশাপাশি বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপিকে চাঙ্গা করতে সক্রিয় হচ্ছে জেলা ও মহানগরের নেতৃবৃন্দ। গ্রেফতার হওয়া নেতা-কর্মীদের জেল থেকে মুক্তির পাশাপাশি আগামীতে সরকার পতন আন্দোলন শক্তিশালী করার লক্ষে তৃনমুল পর্যায়ে সভা-সমাবেশের প্রস্তুতিও নিচ্ছেন তারা।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও বর্তমান সরকারের পদত্যাগের দাবীতে গত ৬ জানুয়ারী থেকে প্রতিটি জেলা এবং উপজেলায় হরতালের পাশাপাশি লাগাতার অবরোধ কর্মসূচি পালন করে আসছে বিএনপি’র নেতৃত্বাধিন ২০ দলীয় জোট। তাদের আন্দোলন কর্মসূচি শুরু থেকেই নিস্তব্দ বরিশাল বিএনপি’র নেতা-কর্মীরা। দলীয় এবং কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে তাদের উপস্থিতি জিরো টলারেন্সে পৌছেছে। তার পরেও গণ গ্রেফতার আতংকে পালিয়ে বেরাচ্ছেন নেতা-কর্মীরা। তাদের অনুপস্থিতিতে দলীয় কার্যালয়গুলোতেও সৃষ্টি হয় জরাজির্ন ও ভুতুরে পরিবেশ। জ্বালানো হয়নি সন্ধ্যা বাতিও। বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপি কার্যালয়ের পাশাপাশি অন্যান্য জেলা ও উপজেলা এমনকি ওয়ার্ড এবং ইউনিয়ন পর্যায়ের কার্যলয়গুলোও একই পরিস্থিতি বিরাজ করে। এসব কার্যালয়ে নেতা-কর্মীদের পদচারনা না থাকার পাশাপাশি দীর্ঘদিন কার্যালয়ের তালা খুলে ভেতরে প্রবেশ না করায় মাকরশার জাল আর ধুলা বালুতে জরাজীর্ন পরিবেশ সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে গত ৮ এপ্রিলের সংখ্যায় দৈনিক আজকের পরিবর্তনে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।
এদিকে সংবাদ প্রকাশের দুই দিনের মাথায় বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপি কার্যালয়ের তালা খোলা হয়েছে। গত ৬ জানুয়ারী আন্দোলন শুরুর পর ৩ মাস ৪ দিন পর গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় কার্যালয়ের ভেতরে জ্বালানো হয়েছে সন্ধ্যা বাতিও। জরাজীর্ন জেলা ও মহানগর কার্যালয়টি ঝাড়-পোছ করে নেতা-কর্মীরা ভেতরে অনেকটা সময় অবস্থান করেছেন। গতকাল সন্ধ্যায় সদর রোড অশ্বিনী কুমার হলের পাশে জেলা ও মহানগর বিএনপি’র নিজস্ব কার্যালয়ে গিয়ে এমন চিত্র দেখাগেছে।
এসময় উপস্থিত নেতা-কর্মীরা আন্দোলনের পর বিভিন্ন সময় মামলা ও গ্রেফতার হওয়া নেতা-কর্মীদের আদালতের মাধ্যমে জামিনে বের করে আনার বিষয়ে আলোচনা করেন। দীর্ঘ দিন পর বিএনপি কার্যালয়ের তালা খুলে সেখানে নেতা-কর্মীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি মনিরুল ইসলাম মনির, সহ-সম্পাদক আনোয়ারুল হক তারিন, দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র দপ্তর সম্পাদক মন্টু খান, যুবদল নেতা আরিফুর রহমান আরিফ, জাহিদ হোসেন জাহিদ, এ্যাড. তসলিম উদ্দিন প্রমুখ।
প্রশ্নের জবাবে উপস্থিত বিএনপি নেতারা বলেন, এখন থেকে তারা দলীয় কার্যালয়ে নিয়মিত কর্মসূচি পালন করবেন। তাদের মূল্য লক্ষ্য এখন বিএনপি’র ভবিৎষ্যত সরকার বিরোধী আন্দোলন আরো শক্তিশালী করা। এজন্য সবার আগে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে হাজতে থাকা সহ¯্রাধিক নেতা-কর্মীদের জামিনে মুক্তি করাটা হবে প্রধান কাজ।
তারা বলেন, এর পাশাপাশি তৃনমুল পর্যায় থেকে আন্দোলন জোরদার করতে আরো কিছু কার্যক্রম চালাবেন তারা। এর মধ্যে ওয়ার্ড পর্যায়ে তৃনমুল আলোচনা সভার মাধ্যমে নেতা-কর্মীদের চাঙ্গা করে তোলা হবে বলে জানান উল্লেখিত নেতা-কর্মীরা। তারা আরো বলেন, জেলা ও মহানগর কার্যালয়ের পাশাপাশি ও মহানগরীর ওয়ার্ড ও জেলা কমিটির অধিনস্ত প্রতিটি উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড বিএনপি কার্যালয়গুলোতে নেতা-কর্মীদের ফিরিয়ে আনতেও তৎপরতা চালাচ্ছেন তারা।