বহিরাগত বখাটেদের হামলার শিকার মডেল স্কুল ছাত্রকে টিসি দেয়ার চেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বরিশাল মডেল স্কুল এন্ড কলেজে এক ছাত্রের ওপর স্বশস্ত্র হামলা চালিয়ে বহিরাগতরা। গতকাল রবিবার দুপুরে স্কুল ছাত্রের সহপাঠি ইমরান’র নেতৃত্বে বহিরাগতরা এই হামলার ঘটনা ঘটায়। আহত ছাত্র হৃদয় মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ৯ম শ্রেনীর ছাত্র। পারস্পারিক রেষারেষির সূত্র ধরে এই হামলা ও মারধরের ঘটনা ঘটেছে বলে দাবী উভয় পক্ষের সহপাঠিদের।
এদিকে বিষয়টি বিদ্যালয় বহির্ভূত ঘটনা দাবী করে প্রাথমিকভাবে কোন ব্যবস্থা না নিলেও পরবর্তীতে অভিভাবকদের অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দিয়েছেন স্কুল এন্ড কলেজটির অধ্যক্ষ মেজর মাসুদ রানা।
সংঘর্ষে জড়ানো দুই শিক্ষার্থীর সহপাঠিরা জানায়, রোববার সকালে হৃদয় ও ইমরানের মধ্যে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে হাতাহাতি হয়। এর কিছুক্ষন পরই ব্যাপ্টিষ্ট মিশন রোড এলাকার বাসীন্দা ইমরান নিজেকে কেডিসি’র সন্ত্রাসী পরিচয় দিয়ে বিদ্যালয় চলাকালীন সময় দারোয়ান মামুনকে উৎকোচ দিয়ে চলে যায়।
এর পর পরই ১০ শ্রেনীর ছাত্র ইমরান কেডিসি এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী, ছিচকে চোর এবং ক্ষুদে সন্ত্রাসী ক্ষ্যাত বন্ধুদের সাথে নিয়ে মডেল স্কুল এন্ড কলেজের সামনে অবস্থান নেয়। প্রতক্ষদর্শী শিক্ষার্থীদের অভিযোগ ধারালো অস্ত্র হাতে এসব ক্ষুদে সন্ত্রাসীদের নেতৃত্ব দেয় ১০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জয়নাল আবেদীন এর পুত্র এ্যানা ও অনু।
এদিকে দুপুরে বিদ্যালয় ছুটির সাথে সাথে হৃদয়কে প্রধান গেটে ডেকে নিয়ে ইমরান ও তার বন্ধু ১০ম শ্রেণির ইমরান, রুবেল ওরফে প্যাদা রুবেল, ইমন সহ ৫/৭ জন ছিচকে বখাটে রড, দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তার উপর হামলা করে। এ সময় শ্রেণির অন্যান্য ছাত্ররা তাকে উদ্ধার করে অধ্যক্ষের কাছে নিয়ে যায়। অধ্যক্ষ উল্টো হৃদয়কেই টিসি দিয়ে তার অভিভাবকদের যোগাযোগ করতে বলেন। অতঃপর এক এমএলএসএস এর পরামর্শে হৃদয়ের পক্ষে স্বাক্ষী দেয় তার একাধিক সহপাঠি। গতকাল দুপুরে বিষয়টি নিয়ে অধ্যক্ষের কক্ষে পুনরায় এক ছাত্রের অভিভাবক গেলে বিষয়টিতে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন অধ্যক্ষ মাসুদ রানা।
এ বিষয়ে মডেল স্কুল এন্ড কলেজ এর অধ্যক্ষ মেজর মাসুদ রানা পরিবর্তনকে জানান, ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্র ইমরান বর্তমানে পলাতক রয়েছে। মারধরের স্বীকার ছাত্র হৃদয় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। দুই পক্ষের অভিভাবকদের ডাকা হয়েছে। শিঘ্রই এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।