বর্ষনে ঈদ বাজারের বিক্রিতে ধস

জুবায়ের হোসেন॥ টানা বর্ষনে নগরীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় ঈদের বাজারে ধস নেমেছে। গত কয়েকদিনের বর্ষনের কারনে কয়েক লাখ টাকার বেচা-বিক্রির কম হয়েছে বলে জানিয়েছে ব্যবসায়ীরা। সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন থান কাপড় ও তৈরি পোষাক বিক্রেতারা। প্রতি বছর এই সময়ে চকবাজারের ওই সকল প্রতিষ্ঠান ক্রেতাদের জমজমাট ভিড়ে মুখরিত থাকে। তবে এবার একই সময়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ফাঁকা। তবে আবহাওয়া কিছুটা পরিবর্তন হলে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে বলেও জানায় তারা। আবহাওয়া অফিসের সূত্র অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার ভোর রাত থেকে বরিশাল নগরীসহ আশপাশের এলাকাগুলোতে শুরু হয় টানা বর্ষণ। ২৪০ দশমিন ৬ মিলিমিটারের এই রেকর্ড পরিমান বৃষ্টিপাতে নগরীর প্রায় সকল ব্যস্ত ও প্রধান সড়কগুলোই তলিয়ে যায় প্রায় ২ ফুট পানির নিচে। দু’দিনের এই জলাবদ্ধতায় পুরো নগরী হয়ে পরে বিপর্যস্ত। বিদ্যুৎ, বিশুদ্ধ পানি, যোগাযোগ ব্যবস্থা দুর্বল হয়ে পড়ে। যার প্রভাব নগরীর ঈদের বাজারে পড়েছে।
চকবাজার এলাকায় তৈরি পোষাক বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান স্বর্ণা ফ্যাশনের মোঃ মিলন জানান, প্রতি বছর ১০ রমজানের মধ্যেই চকবাজারের তৈরি পোষাক বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান জমে উঠে। এই সময়ে বেচাকেনাও থাকে ভাল। তবে জলাবদ্ধতার কারনে এ বছর অবস্থা খুবই খারাপ। দুই দিনেই ১০-১৫ লাখ টাকার বিক্রি কম হয়েছে। ঈদের বেচাকেনার জন্য ৭০-৮০ লাখ টাকা ইতিমধ্যেই বিনিয়োগ করেছেন তিনি বলে মিলন আরও জানান, চকবাজারের ছোট বড় সব দোকানে বিক্রি লক্ষ্য অনুযায়ী হয়নি। বড় প্রতিষ্ঠানের বেশি এবং ছোট প্রতিষ্ঠানের কম হয়েছে। তবে আবহাওয়া কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় গতকাল শনিবার চকবাজারে ঈদ পোশাক ক্রেতাদের আনাগোনা বেড়েছে। যদি এমন থাকে তবে সামনের বিক্রিতে পুষিয়ে যেতে পারে বলেও জানান তিনি।