বর্ণাঢ্য আয়োজনে কীর্তনখোলা পরিবারের নৌ বিহার

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ পারিবারিক সম্পর্ক, সৌহার্দ্য ও ঐতিহ্যকে অটুট রাখার প্রত্যয়ে বর্নাঢ্য আয়োজনে মিলনমেলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, র‌্যাফেল ড্র’র মধ্যে দিয়ে কীর্তনখোলা পরিবারের নৌ-ভ্রমন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার মের্র্সাস সালমা শিপিং কর্পোরেশন এর চেয়ারম্যান ও কীর্তনখোলা ২ লঞ্চের স্বত্তাধিকারী মঞ্জুরুল আহসান ফেরদৌসের একক উদ্যোগে বরিশালে প্রথম বারের মত কীর্তনখোলা -২ লঞ্চে এই নৌ-ভ্রমন অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০ টায় বরিশাল নৌ-বন্দর থেকে নৌ-ভ্রমন শুরু হয়ে মেহেন্দিগঞ্জের ভাষানচর এলাকা ঘুরে পরবর্তীতে আবার বরিশাল নৌ-বন্দরে এসে শেষ হয়। এদিকে নৌ ভ্রমনে ক্লোজআপ ওয়ান তারকা ইসরাত জাহান শর্মী, রিমি, বাউল শিল্পী সালেহ, ফকির জহীরসহ বিভিন্ন শিল্পীদের অংশগ্রহনে অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠান। পরে নৌ-ভ্রমনে আমন্ত্রিত অতিথিদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন মের্র্সাস সালমা শিপিং কর্পোরেশন এর চেয়ারম্যান ও কীর্তনখোলা ২ লঞ্চের স্বত্তাধীকারী মঞ্জুরুল আহসান ফেরদৌস। এসময় তিনি বলেন, বরিশাল জেলা ও জাতীয় দলের সাবেক ও বর্তমান খেলোয়ার এবং কীর্তনখোলা পরিবারের সদস্যদের একত্রিত করতে এই নৌ ভ্রমনের আয়োজন করা হয়েছে। আর এই রকমের অনুষ্ঠান বরিশালে প্রথম অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়াও ভবিষ্যতে এই আয়োজন অব্যাহত থাকবে বলে আশাব্যক্ত করেন তিনি। পাশাপাশি এই আয়োজনে সহযোগীতাকারী, শিল্পীবৃন্দ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার কর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন মের্র্সাস সালমা শিপিং কর্পোরেশন এর চেয়ারম্যান ও কীর্তনখোলা ২ লঞ্চের স্বত্তাধীকারী মঞ্জুরুল আহসান ফেরদৌস। পরে মধ্যাহ্ন ভোজ এবং র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে কীর্তনখোলা পরিবারের নৌ ভ্রমনে উপস্থিত ছিলেন কনফিডেন্স গ্রুপের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী রেজাউল করিম, সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের সাবেক প্রকল্প পরিচালক ডা. ইফাত আরা বেগম, সিলেট মহিলা মেডিকেল কলেজের সাবেক পরিচালক ডা. শফিউল আজম, পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সাবেক রাষ্ট্রদূত ও সচিব এ এইচ এম মনিরুজ্জামান, সিলেট মহিলা মেডিকেল কলেজের গাইনী বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. শাহানা ফেরদৌস চৌধুরি, কনফিডেন্স গ্রুপের সিইও সালমান করিম, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি মনিরুল আহসান মনির, বরিশাল ক্লাব লিমিটেডের সভাপতি কাজী মফিজুল ইসলাম কামাল, শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল, দৈনিক আজকের পরিবর্তন পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক কাজী মিরাজ মাহমুদ, শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা এস এম জাকির হোসেন, কোষাধ্যক্ষ কাজী আল মামুন, সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর কামরুন্নাহার রোজি, এমভি ধুলিয়া লঞ্চের স্বত্তাধিকারী মিজানুর রহমান, দৈনিক ভোরের আলোর উপদেষ্টা রাজু আহমেদ, ফুটবল রেফারী এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব শামসুল হক, যুগ্ম সম্পাদক অলিউল ইসলাম অলি, সহ-সভাপতি মাকসুদ আলম বেগ, বেলায়েত হোসেন, আবদুল মজিদ, মাইনুল ইসলাম, চরবাড়িয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মজিবুল হক, সাবেক ফুটবলার শফিকুল ইসলাম, হারুন অর রশিদ, নজরুল ইসলাম, খাইরুল ইসলাম, কাজী মনু, জেলা ফুটবল ক্রীড়া এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম মিলন, বরিশাল বুলস’র ম্যানেজার সাবেক ক্রিকেটার মঈনুজ্জামান মঈন, সোনালী অতিত ক্লাবের সাধারন সম্পাদক জাহিদ হোসেন, শিক্ষক নেতা মো. জহিরুল ইসলাম জাফর, সাবেক জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আরিফুর রহমান, জাহিদুল ইসলাম, স্বপন কুমার দাশ, সাবেক জাতীয় ফুটবল দলের গোল রক্ষক আরিফুর রহমান পান্নু, গোলাম মোস্তফা ছোট, কীর্তনখোলা ২ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. বেল্লাল হোসেন, জেলা ফুটবল দলের অধিনায়ক মো. আতিকুল ইসলাম রাকিবসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ এবং কীর্তনখোলা পরিবারের সদস্য ও শুভাকাংখীবৃন্দ। এদিকে র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠানে ১ম হয়েছেন মের্সাস সালমা শিপিং কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপক মো. জাহিদুল ইসলাম ঝন্টু। এছাড়াও র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠানে বাকি ৩৩ জন বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরন করেন আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ। বণার্ঢ্য ও ব্যাতিক্রমী এ আয়োজনে উপস্থিত সকলেই মুগ্ধ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। বিশেষ করে মঞ্জুরুল আহসান ফেরদৌসের আতিথেয়তার কারনে সকলে প্রশংসা কুড়িয়েছেন তিনি।