বরিশাল বোর্ডে হিন্দু ধর্মে ফল বিভ্রাট হৃদয় আত্মহত্যার প্ররোচনাকারিদের বিচার দাবীতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল শিক্ষা বোর্ডে এসএসসি পরীক্ষায় হিন্দু ধর্মের ফলাফল বিপর্যয়ের শিকার সর্বজিৎ ঘোষ হৃদয়’র আত্মহত্যার প্ররোচনাকারীদের বিচার দাবীতে নগরীতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় উদয়ন স্কুলের শোকাহত সহপাঠি, শিক্ষক, অভিভাবক, বন্ধু মহল এবং বরিশালবাসীর উদ্যোগে এই কর্মসূচী পালন করা হয়।
সদর রোডের অশ্বিনী কুমার টাউন হলের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সর্বজিতের সহপাঠি জিদান হোসেন, সুমন, ১০ম শ্রেণির ছাত্র ইসতিয়াক রহমান, তানজিদ শাহরিয়ার মুনিম, ৮ম শ্রেণির ছাত্র রাফসান বাপ্পি, সাজিদ, অংকন রায়, ও স্কুলের কর্মচারী হালিম প্রমুখ।
এসময় বক্তারা বলেন, শিক্ষা বোর্ড কর্মকর্তাদের ভুল এবং দায়িত্বে অবহেলার খেসারত দিতে হয়েছে সহপাঠি মেধাবী ছাত্র সর্বজিৎ ঘোষ হৃদয়কে। তার প্রতি গভীর শোক এবং পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বক্তারা বলেন, বোর্ড কর্মকর্তাদের গাফেলতির কারণে হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা বিষয়ে বহু শিক্ষার্থীর ভুয়া ফলাফল প্রকাশ করা হয়। আজ যদি হিন্দু ধর্মের ভুল ফলাফল প্রকাশ না করা হতো তাহলে হৃদয়কে আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে হতো না। কর্মকর্তাদের অবহেলার কারণে একটি ভবিষ্যত অকালে ঝড়ে গেছে।
বক্তারা বলেন, ফলাফল প্রকাশের আগে কর্তৃপক্ষ যদি একবারের জন্য হলেও খেয়াল রাখতো তাহলে এমন হতো না। কেননা কোন শিক্ষার্থী ধর্ম বিষয়ে ফেলের বিষয়টি সহজভাবে মেনে নিতে পারেনা। এমন যৌক্তিকতা তুলে ধরে তারা বলেন, হৃদয় আত্মহত্যা করেনি। তাকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা যোগানো হয়েছে। তাই হৃদয়ের এই অকাল প্রয়াণের দায়ভার বোর্ড কর্তৃপক্ষকেই নিতে হবে। এজন্য জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীও জানান তারা।
উল্লেখ্য, গত ১১ মে এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর হৃদয় জানতে পারে, সে সকল বিষয়ে পাস করলেও ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা বিষয়ে ফেল করেছে। এতে লজ্জায়-ঘৃনায় হৃদয় প্যারারা রোডের একটি নির্মাণাধীন বহুতল ভবনের তৃতীয় তলা থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরবর্তীতে ধর্মশিক্ষা বিষয়ের ফলাফল পুনরায় প্রকাশ করা হলে সে এই বিষয়ে জিপিএ-৫ লাভ করে।