বরিশাল বিএনপিতে নতুন মেরুকরণের ইঙ্গিত

সিদ্দিকুর রহমান ॥ পদবঞ্চিত সাবেক ছাত্র ও যুবদল নেতাদের ঐক্যবদ্ধতার মধ্যে দিয়ে শীঘ্রই বরিশাল বিএনপিতে নতুন নেতৃত্বের সৃষ্টি হচ্ছে। যেসকল ছাত্র ও যুব নেতার অক্লান্ত পরিশ্রম আর ত্যাগের ফলে বরিশাল বিএনপির আজকের এই অবস্থান, সেসকল নেতাকর্মীকে এক প্রকার ছাঁটাই করে দিয়ে যারা আজ নেতৃত্ব দিচ্ছে, তাদের বিপরীতেই এই নেতৃত্বের সৃষ্টি হবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক অবহেলার শিকার হওয়া এবং রাজপথ কাঁপানো সাবেক ছাত্র ও যুবদলের ত্যাগী নেতারা।
গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয় একটি রেস্তোরায় জাতীয়তাবাদীর সাবেক ছাত্র ও যুব নেতৃবৃন্দের আয়োজনে অনুষ্ঠিত শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৬ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মোনাজাতের অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তারা।
এ সময় তারা আরো বলেন, শহীদ রাষ্ট্র্রপতি জিয়াউর রহমানের দল বিএনপিকে আরো শক্তিশালী করার লক্ষ্যে সাবেক ছাত্র ও যুবদল নেতৃবৃন্দ’র বিকল্প নেই। বিগত ২০ ও ৩০ বছর ধরে সেসকল নেতৃবৃন্দ সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করে দলের জন্য কাজ করেছেন আজ তারা অবহেলিত।
তাছাড়া পূর্বে যারা এই সকল নেতৃবৃন্দকে যারা পাহারা দিত, আজ তারা দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, কিছু পদলোভী, নামধারী কর্মদক্ষতাহীন, অসাংগঠনিক নেতৃত্বের ফলে আজ এই দলটির অস্তিত্ব নিয়ে নিয়ে টানাপোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। কিছু সন্ত্রাসী বাহিনীদ্বারা বিএনপি পরিচালিত হওয়ার কারনে দল থেকে ভাল মানুষগুলো মুখ ফিরিয়ে রাখতে বাধ্য হচ্ছে। তাছাড়া আজ আমাদেরকে যাদের দেখে রাখার কথা ছিল, তারা আমাদের দিকে না তাকিয়ে আজ সন্ত্রাসী নিয়ে দল চালায়। তাই দলের এই দুঃসময়ে জিয়ার সাবেক ত্যাগী সৈনিকরা বেগম খালেদা জিয়ার হাতকে শক্তিশালী করা এবং দলকে চাঙ্গা করতে আবারো মাঠে নামছে ।
ছাত্রদল ও যুবদলের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রিয় সদস্য এ্যাড. আতাহারুল ইসলাম চৌধুরি বাবুলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, কোতয়ালী থানা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক শেখ আব্দুর রহিম, মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি ও জেলা আইনজীবি সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক এ্যাড. মহসিন মন্টু, যুবদলের সাবেক সভাপতি ও মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি মো. মনিরুল আহসান তালুকদার মনির, মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি ও সরকারি বরিশাল কলেজের সাবেক ভিপি রফিকুল ইসলাম শাহীন, জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি খাজা মো. ইকবাল, সাবেক ছাত্র ও যুবনেতা সাইদ আহমেদ মধু, কাউন্সিলর সৈয়দ হাবিবুর রহমান টিপু, কাউন্সিলর হারুন অর রশিদ, সাবেক কাউন্সিলর আ ন ম সাইফুল আহসান আজিম, খাজা হারুন অর রশিদ, মাকসুদ আলম, এ্যাড. সাদিকুর রহমান লিংকন, এ্যাড. নিপু, জেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক এইচ এম তসলিম উদ্দিন সহ প্রায় শতাধিক নেতৃবৃন্দ।
এসময় তারা বলেন, সাবেক এই ত্যাগী নেতৃবৃন্দকে একরকম কোনঠাসা করে রেখেছেন বর্তমানের পদলোভী নেতারা। তারা চিন্তা করছেন সাবেক এই ত্যাগী ও দক্ষ নেতৃত্ব যদি আবার মাঠ পর্যায়ে নেতৃত্বে আসে তাহলে নামধারী কর্মদক্ষতাহীন ও অসাংগঠনিক এই নেতারা তাদের পদ হারানোর ভয়ে রয়েছে। যার ফলে সাবেক ঐ নেতাদেরকে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য কোন সুযোগ দিচ্ছে না এবং দলের কোন ধরনের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রনও জানাচ্ছেন না। তারা বলেন, এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকল নেতৃবৃন্দ হল মহানগর বিএনপির সর্বোচ্চ ত্যাগী যুব ও ছাত্রনেতৃবৃন্দ। তাই রমজান মাসের শেষ দিকে সাবেক ছাত্র ও যুব নেতাদের অংশ গ্রহনে সমাবেশের মধ্যে দিয়ে নতুন নেতৃত্ব আনুষ্ঠানিক ভাবে সামনে আনা হবে বলে জানান নেতৃবৃন্দ।