বরিশাল আদালতে বিএনপি নেত্রীর শোক দিবসে জন্মদিনপালনে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে মামলা খারিজ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ জাতীয় শোক দিবসে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালনে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আদালতে ছাত্রলীগ নেতার করা নালিশী আবেদন খারিজ করে দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার মামলার গ্রহন শুনানী শেষে খারিজ করে জ্যেষ্ঠ সহকারী জজ আদালতের বিচারক এইচএম কবির হোসেন।
সোমবার ওই নালিশী অভিযোগ করে অবৈধ ছাত্র কর্মপরিষদ ভিপি ও ছাত্রলীগ নেতা মঈন তুষার। এতে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে প্রধান বিবাদী করা হয়েছে। এছাড়াও অপর বিবাদীরা হলো- ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ার, সাধারন সম্পাদক এ্যাড. আবুল কালাম, উত্তর জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক এমপি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি এবায়দুল হক চান ও কোতয়ালী বিএনপি’র সভাপতি এ্যাড. এনায়েত হোসেন বাচ্চু।
মঙ্গলবার আদেশ দেয়ার দিনে গ্রহনযোগ্যতা না থাকায় খারিজ করে দেয়া হয়েছে বলে বেঞ্চ সহকারী দিন মোহম্মদ জানিয়েছেন।
১৫ই আগষ্ট জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপরিবারে খুন হন। তাই এই দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস পালন হয়ে আসছে। এ দিনটিতে বাদীপক্ষ সহ দেশ জুড়ে সাধারন মানুষ মনোকষ্টে ভোগেন। কিন্তু ১৫ই আগস্ট শোকের এই দিনটিতে বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া তার জন্মদিন পালন করে। এটা জাতীর জন্য একটি বেদনা দায়ক ঘটনা।
আগামী ১৫ আগষ্টের তার জন্মদিন নয় দাবী করে বাদী বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর দিনটিতে কেক কেটে মিথ্যা জন্মদিন পালন না করতে পারে সে বিষয়ে অনুরোধ জানিয়েছেন। কিন্তু তার পরেও খালেদা জিয়া আবারও মানুষকে কষ্ট দিতে আগামী ১৫ আগস্ট মিথ্যা জন্মদিন পালনের চেষ্টা করছেন। আর তাই বাদী মঈন তুষার আগামী ১৫ই আগস্ট শোকের দিনে যাতে বেগম খালেদা জিয়ার মিথ্যা জন্মদিন পালন না করে সে জন্য ১ থেকে ৫ নম্বর বিবাদীদের বিভিন্ন সময় অনুরোধ জানিয়ে আসছে। সর্বশেষ গত ৫ই আগস্ট পূনরায় একই অনুরোধ করলে ১ থেকে ৫ নম্বর বিবাদীরা বাদী মঈন তুষারকে হুমকি দেয় বলেও মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।
তাই বাধ্য হয়ে বেগম খালেদা জিয়া যাতে তার ভুয়া জন্মদিন পালন করতে না পারে সে জন্য প্রতিকার চেয়ে বাদী এই মামলাটি করে।