বরিশাল আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদের নিরঙ্কুশ বিজয়

ওয়াহিদ রাসেল॥ বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আ’লীগ সমর্থিত প্যানেল সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদ নিরঙ্কুশ ভাবে বিজয়ী হয়েছে। গতকাল শুক্রবার ভোট গণনা শেষে আওয়ামীলীগ প্যানেলকে বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪ট পর্যন্ত জেলা আইনজীবী সমিতির ভবন ২ এ ভোট গ্রহণ করা হয়। এ সময় ৭৯৭ জন ভোটারের মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করে ৭১২ জন ভোটার। ভোট গ্রহণ শেষ করে সন্ধ্যা ৬টার পর থেকেই প্রার্থী ও সকল আইনজীবীদের উপস্থিতিতে ভোট গণনা শুরু করা হয়। প্রথম দিকে প্যানেলের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চললেও শেষ দিকে নিরঙ্কুশ ভাবে জয়ী হয় সম্মিলিত প্যানেল। নির্বাচন কমিশনার সৈয়দ ওবায়দুল্লাহ খান সাজু জানান, ৭১২ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করলেও এর মধ্যে ব্যালট পেপারে ভুল করায় ৭টি ভোট বাতিল বলে গণ্য করা হয়। অবশিষ্ট ভোট গুলোর মধ্যে সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদের সভাপতি প্রার্থী আনিচ উদ্দিন আহাম্মেদ শহীদ-৩৮৫ ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী কাজী মনিরুল হাসান ৪৪৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। অপরদিকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের প্রতিদ্বন্দ্বি সভাপতি প্রার্থী মুজিবুর রহমান নান্টু ৩২০ ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী নাজিম উদ্দিন আহাম্মেদ পান্না পেয়েছে ২৬০ ভোট। অন্যান্য প্রার্থীদের মধ্যে বিজয়ী হয়েছেন সম্মিলিত পরিষদের সহ-সভাপতি পদে মোঃ শহীদ আজগর খান বাবুল ৩৮২, সমীর কুমার দত্ত ৩৬১, অর্থ সম্পাদক পদে এমএ জলিল ৪০৬ ভোট। প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা পেয়েছে মোঃ মহসিন ৩৬০ ভোট, মোঃ আবুয়াল সাইয়েদ তারেক ২৩৩, ও এইচ এম আনিচুর রহমান ২৮৫ ভোট। যুগ্ম সম্পাদক পদে যৌথ ভাবে বিজয়ী হয় সম্মিলিত পরিষদের সাইফুল ইসলাম মোল্লা ৩৯৬ ও আইনজীবী ফোরামের সুফিয়া আক্তা ৩১৯ ভোট পেয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা পেয়েছেন ফোরামের শফিকুল ইসলাম রাহাত ২৯২ ও পরিষদের সামসুন্নাহার মুক্তি ৩০৪ ভোট। এছাড়াও নির্বাহী সদস্য সম্মিলিত প্যানেলের বিজয়ীদের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন মোঃ ইশতাক আহাম্মেদ রুবেল ৫৭৭ ভোট, মঈনুদ্দিন মাহবুবুল আলম সিকদার ৩৯৩, মোল্লা মোঃ গিয়াস উদ্দিন তমাল ৪০৮, ও সুমন চন্দ্র হালদার ২৮৬ ভোট পেয়েছে। প্রতিদ্বন্দ্বি সদস্যদের মধ্যে পেয়েছে মোঃ তাজ উদ্দিন সিকদার ২৬৮, মোঃ আবুল বাসার ২৪৯, মোঃ তানবীর আহম্মেদ ২২৬ ও আজিজুর রহমান খান রিয়াজ ১৫৪ ভোট। সদস্য নির্বাচনে উপ-পরিষদের জন্য যারা বিজয়ী হয়েছেন তারা হলো সম্মিলিত পরিষদের ভানু রঞ্জন দাস ৩৬৫, সালাউদ্দিন সিপু ৩৬৬, জামাল হোসেন ৪৪৯, মিজানুর রহমান মিন্টু ৩৯৭ ও ফোরামের কাজী বশির উদ্দিন ৩১৩ ভোট। প্রতিদ্বন্দ্বিরা হলো, মোঃ তারিকুল ইসলাম ১৯২, আ.ন.ম বজলুর রশিদ রুমি ২৬৩, মাহমুদ হোসাইন আল মামুন ২৩৮ ও এসএম শওকত জাহাঙ্গীর ২৯৭ ভোট পেয়েছেন। উল্লেখিত, বিজয়ী প্রার্থীরা ১ মার্চ থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে তাদের দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন।