বরিশাল আইনজীবী সমিতির নির্বাচনের চূড়ান্ত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ

ওয়াহিদ রাসেল ॥ বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে অংশ নেয়া দুই প্যানেলের প্রতিবাদী ভূমিকায় মনোনয়ন পত্র বাতিল হওয়া দুই সভাপতিসহ ৬ জনের প্রার্থীতা বহাল রাখা হয়েছে। গতকাল সোমবার বাতিলের প্রতিবাদে ক্ষমতাসীন মহাজোট সমর্থিত প্যানেলের বিদ্রোহী বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদ ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভা এবং প্রার্থীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বহাল রাখা হয়।
৬ জনের বাতিলাদেশ বহালসহ শেষ দিনে দুই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করার পর প্রতিদ্বন্দ্বী ৪৩ প্রার্থীর চূড়ান্ত তালিকা ঘোষণা করেছে নির্বাচন উপ-পরিষদ।
বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন উপ-পরিষদের ৫ সদস্য ছাড়াও ১১ পদে আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি ভোটগ্রহণ করা হবে। এতে সমিতির ৭৯৭ ভোটার এক বছর মেয়াদী কমিটির নেতা নির্বাচন করবেন।
নির্বাচনে মহাজোট সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ, বিদ্রোহী বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদ ও জোট সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের প্যানেল অংশ নিচ্ছে।
রোববার জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ (১) ও নির্বাচন উপ-পরিষদ সদস্য মন্নান মৃধা, বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের সভাপতি প্রার্থী সাইফুল আলম গিয়াস, সহ-সভাপতি এমদাদুল হাসান, অর্থ সম্পাদক মির্জা ঈমানউল্লাহ ও নির্বাহী সদস্য লিটন চন্দ্র শীল এবং দুলাল চন্দ্র, নির্বাচন উপ-পরিষদের আলমগীর হোসেনসহ ৯ জনের মনোনয়ন পত্র বাতিল করে খসড়া তালিকা প্রকাশ করে নির্বাচন উপ-পরিষদ।
এর প্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার বিদ্রোহী বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদ সমিতির মূল ভবনে ও জোট সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের বর্ধিত ভবনে পৃথকভাবে প্রতিবাদী সভা করে তারা।
বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের সভাপতি নাসির উদ্দিন আহম্মেদ বাবুলের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্যে রাখেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আব্দুর রশিদ খান, দেলোয়ার হোসেন দিলু, বাতিল হওয়া সভাপতি প্রার্থী সাইফুল আলম গিয়াস, মির্জা ঈমানউল্লাহ, মাসুম খান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
সেখানে বক্তারা মনোনয়ন পত্র বাতিলের ঘটনাকে ষড়যন্ত্রমূলক অভিহিত করে গত নির্বাচনে জয়ী সম্মিলিতি আইনজীবী পরিষদের নেতৃবৃন্দর উপর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা নেতৃবৃন্দকে সমিতি কলংকিত না করে স্বচ্ছ, সুষ্ঠু, সুন্দর ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করার আহবান করেন বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদ নেতৃবৃন্দরা।
পরে মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের ৭ জন প্রার্থীতা বহাল রাখার আবেদন করেন।
অপরদিকে বর্ধিত ভবনে একইভাবে প্রতিবাদ সভা করে বাতিল হওয়া জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের দুই প্রার্থী আবেদন করেন।
আইনজীবী ফোরামের প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আলী আহম্মেদ। বক্তব্য রাখেন মজিবর রহমান নান্টু, সাইয়েদ উদ্দিন আহম্মেদ মধু, মহসিন মন্টু, শাহ আমিনুল ইসলাম আমিন, প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ (১), সম্পাদক প্রার্থী নাজিম উদ্দিন আহম্মেদ পান্না, আবুল কালাম শাহীন, আবুল কালাম আজাদ ইমন, এইচএম আনিছুর রহমান প্রমুখ।
বিকেলে নির্বাচন উপ-পরিষদের আহবায়ক ভানু রঞ্জন দাস চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেন। সেখানে দেখা গেছে বাতিল হওয়া ছয় প্রার্থী সভাপতি পদের সাইফুল আলম গিয়াস, আবুল কালাম আজাদ (১), এমদাদুল হক খান, দুলাল চন্দ্র শীল, রতন কুমার দাস ও লিটন চন্দ্র শীলের প্রার্থীতা বহাল রাখা হয়েছে। তবে প্রার্থীতা ফিরে পায়নি অর্থ সম্পাদক মির্জা ঈমানউল্লাহ, আলমগীর হোসেন ও ফোরামের মন্নান মৃধা।
কিন্তু দুই প্রার্থী বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহ-সভাপতি আবুল বাসার খান ও যুগ্ম সম্পাদক পদের প্রার্থী হুমায়ন কবির হিমু তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন।
নির্বাচন উপ-পরিষদের আহবায়ক ভানু রঞ্জন দাস জানান, তিন জনের প্রার্থীতা বহালের আবেদন সন্তোষজনক না হওয়ায় তাদের প্রতিদ্বন্দ্বিতার সুযোগ দেয়া হয়নি।