বরিশালে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে বাঁধা পুলিশের সাথে স্থানীয়দের সংঘর্ষ

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে বাঁধা দেওয়ায় নগরীতে পুলিশ ও স্থানীয়দের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের কর্মীরা বৃহস্পতিবার সকালে নগরীর কাউনিয়া বটতলা এলাকার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য অভিযান শুরু করলে তাতে স্থানীয়রা বাঁধা দেয়। অভিযান অব্যাহত রাখলে স্থানীয় লোকজন তাদের মারধর করে। পুলিশ স্থানীয়দের নিবৃত্ত করতে গেলে তাদের উপরও হামলা চালায় স্থানীয়রা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ ও গুলি ছোড়ে। এতে পুলিশসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়। উভয়পক্ষের সংঘর্ষে সিটি কর্পোরেশনের নিরাপত্তা সুপার নিকর চন্দ্র দাস, আরআই সাজ্জাদ, সোহেল খান, মেহেদী খান, আণোয়ার, সালাউদ্দিন, মোস্তাফিজ ও বুল ডোজার চালক মহিউদ্দিন আহম্মেদ ও পুলিশ সদস্য রেজাউল, আসাদ, সুমন এবং আর্মড পুলিশের এক সদস্যসহ মোট ৮জন আহত হয়েছে।
এদিকে পায়ে রাবার বুলেট বিদ্ধ হয়ে মাইনুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এছাড়া পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে ১৪৩ রাউন্ড গুলি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। হামলার সাথে সম্পৃক্ততায় ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হল, দেলোয়ার, অহিদুল, শাহ্ আলম, আব্দুল খালেক ও শহিদুল ইসলাম। কাউনিয়া থানার ওসি সেলিম রেজা বলেন, পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। এছাড়া অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা রয়েছে।
বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মো. হাবিবুর রহমান জানান, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে এসে সিটি কর্পোরেশন কর্মকর্তারা এবং পুলিশ হামলা শিকার হওয়ায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ গুলি ছোড়ে। এছাড়া বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে এবং ঘটনাস্থল থেকে হামলার সাথে যুক্ত এমন ৫ জনকে আটক করা হয়েছে।
বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমতিয়াজ মাহামুদ জুয়েল জানান, এ ঝামেলার ফলে আমাদের কিছু সদস্যরা আহত হয়েছে। পরবর্তী সিদ্ধান্তের পর অভিযান চালানো হবে।