বরিশালের সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিল ‘লে-অফ’ ঘোষণা

আনিচুর রহমান ॥ খান সন্স গ্র“পের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিল লে-অফ (শ্রমিকের কর্মচ্যুতি) ঘোষণা করা হয়েছে। সোমবার বরিশাল নগরীর রূপাতলীর ঐ শিল্প প্রতিষ্ঠানটির প্রধান ফটকে লে-অফ ঘোষণার নোটিশ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। নোটিশে ৫ মে সকাল ৬টা পর্যন্ত মিলটি লে-অফ রাখার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। তবে ফ্যাক্টরীর চিকিৎসা, নিরাপত্তা, যান্ত্রিক ও বিদ্যুৎ বিভাগে কর্মরতরা এর আওতায় থাকবে না।
জানা গেছে, শিল্প প্রতিষ্ঠানটিতে প্রায় দেড় হাজার শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তা কর্মরত ছিলেন। অভিযোগ আছে, প্রায় ৩০০ কর্মকর্তার ৩ থেকে ৪ মাস এবং শ্রমিকদের চলতি মাসের বেতন বকেয়া রেখেই প্রতিষ্ঠানটি লে-অফ ঘোষণা করা হয়। সোমবার সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিলে গিয়ে দেখা গেছে মিলের প্রধান গেটে ঝুলছে লে-অফ নোটিশ। নোটিশে লেখা হয়েছে, অনিবার্য কারণবশত ২৮ এপ্রিল থেকে প্রতিষ্ঠানটি লে-অফ ঘোষণা করা হলো। উল্লেখিত তারিখ থেকে সোনারগাঁও টেক্সটাইলের সব বিভাগ বন্ধ থাকবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিলের এক কর্মকর্তা জানান, নিয়মানুযায়ী কোনো শিল্প প্রতিষ্ঠান লেঅফ ঘোষণার আগে শ্রমিক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বকেয়া বেতন পরিশোধ করতে হয়। এক্ষেত্রে সে নিয়ম মানা হয়নি। তিন শতাধিক কর্মকর্তার ৩ থেকে ৪ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। শ্রমিকদেরও চলতি মাসের বেতন পরিশোধ করা হয়নি। সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিলের উৎপাদন বন্ধের নোটিশের অনুলিপি সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, যুগ্ম শ্রম পরিচালক, কাষ্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠন সমূহের উপ-প্রধান পরিদর্শক, কোতয়ালী মডেল থানার ওসিসহ প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টদের দেয়া হয়েছে। কিন্তু সেখানেও তারা উৎপাদন বন্ধের কোন কারণ উল্লেখ করেননি। তবে শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে বলে নোটিশে উল্লেখ রয়েছে। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিলের ব্যবস্থাপক সালাউদ্দিন চৌধুরী প্রতিষ্ঠানটি লে-অফ ঘোষণার সত্যতা স্বীকার করে সাংবাদিকদের জানান, সাময়িকভাবে আগামী মাসের ৫ তারিখ সকাল পর্যন্ত লে-অফ ঘোষণা করা হয়েছে। কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, তুলা সংকটের কারণে কর্তৃপক্ষ এ পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়েছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে মিলটির শ্রমিকরা জানিয়েছে, তুলা সংকটের কারণ দেখিয়ে উৎপাদন ৮ দিন বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয়া হলেও তা আরো বেশিদিন চলতে পারে। চলতি মাসের শেষ হয়ে আসলেও লে-অফ ঘোষণার আগে তাদের বেতন ভাতা পরিশোধ করা হয়নি। চলতি মাসের বেতন কবে পাবেন তা নিয়ে শ্রমিকদের মাঝে নানা অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।