ববি’র নবনিযুক্ত ভিসির যোগদান

বরিশাল বিশ্ব বিদ্যালয়ের নতুন ভাইস-চ্যান্সেলর উপমহাদেশের স্বনামধন্য ও প্রথিতযশা বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. এসএম ইমামুল হক দায়িত্বভার গ্রহন করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের সাবেক এই অধ্যাপক গতকাল রোববার বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এসে দায়িত্বভার গ্রহন করেন। এর আগে তাকে বরিশাল বিমানবন্দরে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি, সাধারন সম্পাদক, যুগ্ম- সাধারন সম্পাদক, রেজিষ্ট্রারসহ (চলতি দায়িত্ব) বিভিন্ন দপ্তর প্রধানগন। বেলা পৌনে ১২টায় তিনি ক্যাম্পাসে এসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি বিভাগের বিভাগীয় প্রধানসহ সকল শিক্ষকদের সাথে মতবিনিময় করেন। দুপুর আড়াইটায় সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। মতবিনিময় সভায় ভাইস-চ্যান্সেলরকে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ, অফিসার্স এসোসিয়েশন, বঙ্গবন্ধু কর্মকর্তা পরিষদ, ৩য় শ্রেনী কর্মচারী কল্যান পরিষদ, ৪র্থ শ্রেনী কর্মচারী কল্যান পরিষদ ও বঙ্গবন্ধু কর্মচারী পরিষদ’র পক্ষ থেকে ফুলের শুভেচ্ছা জানানো হয়। গত ২৫ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আগামী ৪ বছরের জন্য তাকে এ পদে নিয়োগ দেন এবং এর আলোকে গত ২৮ মে ভাইস-চ্যান্সেলর হিসেবে মন্ত্রনালয়ে যোগদান করেন। ড.এস এম ইমামুল হক ১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মৃত্তিকা বিজ্ঞান-এ ¯œাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে ১৯৭৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ১৯৮০ সালে থাইল্যান্ডের ব্যাংককে অবস্থিত এশিয়ান ইনষ্টিটিউট অব টেকনোলজি (এআইটি) থেকে এগ্রিকালচারাল সয়েল এবং ওয়াটার ইঞ্জিনিয়ারিং এ এমএসসি, ফ্রান্সের নেন্সি বিশ্ববিদ্যালয় হতে ১৯৮৪ সালে ডক্টর অব ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জন করেন এবং একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পোষ্ট ডক্টরাল ফেলোশিপ অর্জন করেন। ড.এস. এম. ইমামুল হক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সেন্টার ফর এনভায়র্নমেন্টাল রিসার্চ’র প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক, বিসিএসআইআর’র চেয়ারম্যান, ঢাবি’র মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের চেয়ারম্যান, জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন (ভারপ্রাপ্ত), শহীদুল্লাহ হলের প্রাধ্যক্ষ, রেডিও টুডে মিডিয়া একাডেমির অনারারি ডিন পদে অত্যন্ত যোগ্যতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বাংলাদেশ সরকারের কৃষি,পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দেশি বিদেশী সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের পরামর্শক ও উপদেষ্টা পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। পাশাপাশি বাংলা একাডেমি, এশিয়াটিক সোসাইটি, বাংলাদেশ মৃত্তিকা বিজ্ঞান সমিতিসহ বিভিন্ন সংগঠনের আজীবন সদস্যসহ একাধিক সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট, সিন্ডিকেট ও একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিংবডির সাথেও জড়িত আছেন। মাটি থেকে পানির মাধ্যমে খাদ্যচক্রে আর্সেনিকের সংক্রমন এবং প্রকোপ নিয়ে তার গবেষণা দেশ বিদেশে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত। ড. হক’র ২৯০ টিরও অধিক প্রকাশনা জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক মানের বিভিন্ন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। তিনি জীববিজ্ঞান বিভাগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিভাগীয় জার্নাল’র প্রধান সম্পাদক, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি জার্নাল(বিজ্ঞান) ও বাংলাদেশ মৃত্তিকা বিজ্ঞান জার্নাল’র যুগ্ম সম্পাদক, বাংলাদেশ মৃত্তিকা বিজ্ঞান সোসাইটি জার্নাল’র স¤পাদকীয় বোর্ডের সদস্য সহ অনেক জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক বৈজ্ঞানিক জার্নালের পর্যালোচক। বিভিন্ন সময়ে তিনি দেশে বিদেশে অসংখ্য সভা, সেমিনার ও সিম্পোজিয়ামে অংশগ্রহন করেছেন। তিনি বাংলাদেশ মৃত্তিকা বিজ্ঞান সমিতির বর্তমান সভাপতি এবং বাংলাদেশ বিজ্ঞান উন্নয়ন সমিতির সদ্য প্রাক্তন সভাপতি। জীবনের নানা পর্যায়ে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশ একাডেমি অব সায়েন্সেস গোল্ড মেডেল, বাংলাদেশ ইউজিসি অ্যাওয়ার্ড ২০০৭, বঙ্গবন্ধু কৃষি পদক ২০০৮, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা পদক ২০০৯ পেয়েছেন।