ববি’তে তুচ্ছ ঘটনায় তুলকলাম এক ছাত্র হাসপাতালে দুই ছাত্র পুলিশ হেফাজতে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (ববি) দিনভর মারামারি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ববি’র দুই বিভাগের ছাত্রদের মধ্যে ঘটা ওই ঘটনা রাজনৈতিক রূপ লাভ করে। যার প্রেক্ষিতে দুই ছাত্রকে ছাত্রদল কর্মী পরিচয়ে পুলিশের হেফাজতে দেয়া হয়। আহত আব্বাস উদ্দিন উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ও ছাত্রলীগ কর্মী। তাকে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনা নিয়ে ববি উপাচার্য’র কাছে আহত ওই ছাত্র লিখিত অভিযোগও দিয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মার্কেটিং বিভাগের ছাত্রীর সাথে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রের সাথে বাসের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক হয়। পরে এর জের ধরে ববি’র স্থায়ী ক্যাম্পাসে এসে মারামারি, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। যা দিনভর অব্যাহত ছিল। পরিস্থিতি শান্ত করতে কোতয়ালী মডেল ও বন্দর থানার ওসিসহ প্রক্টরিয়াল বডির নেতৃবৃন্দকে হস্তক্ষেপ করতে হয়েছে।
ববি’র ছাত্রলীগ নেতা পরিচয় দেয়া ছাত্র ইমরান জানান, ববি’র উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ও ছাত্রলীগ কর্মী আব্বাস উদ্দিনকে শ্রেণি কক্ষ থেকে শার্টের কলার ধরে টেনে বের করে মার্কেটিং বিভাগের ছাত্র ও ছাত্রদল কর্মী রিয়াদ ও সিফাতসহ ৮/১০ জন। পরে তারা আব্বাসকে মারধর করেছে। এতে আহত ছাত্রলীগ কর্মী আব্বাসকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এই ঘটনার পর বিশ^বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ এলে ছাত্রদল কর্মী রিয়াদ ও সিফাতকে তাদের হাতে তুলে দেয়া হয়।
ববি’র জনসংযোগ কর্মকর্তা ফয়সাল মাহমুদ র”মী জানান, বাসে বসা নিয়ে একটু সমস্যা হয়। ওই সমস্যা নিয়ে স্থায়ী ক্যাম্পাসে উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রকে মার্কেটিং বিভাগের ছাত্ররা চড় দেয়। এ নিয়ে দুই বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। বিকেলে বাসে উঠার সময় দুই বিভাগের ছাত্রদের মধ্যে হাতাহাতি হয়। তখন প্রক্টরিয়াল বডির নেতৃবৃন্দ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। ওই সময়ে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ ঘটনার জন্য ছাত্রদলের দুই জনকে দায়ী করে। পরিস্থিতি শান্ত করতে তাদের পুলিশের হেফাজতে দেয়া হয়। দুই ছাত্রের অভিভাবকদের খবর দেয়া হয়েছে। তারা এলে দুই ছাত্রকে তাদের কাছে দেয়া হবে।
জনসংযোগ কর্মকর্তা আরো জানান, বিষয়টি বিকেলে সমাধান করা হয়েছে। যে যার মতো চলে গেছে। ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।
শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছাত্র আব্বাস উদ্দিন সাংবাদিকদের জানায়, সকাল ৯ টার দিকে নগরীর নথুল্লাবাদ এলাকা থেকে ববি’র শিক্ষার্থী পরিবহনে ব্যবহৃত বিআরটিসির দ্বিতল বাসে উঠে সে। এসময় বাসে মার্কেটিং বিভাগের ছাত্রী তামান্নার শরীরের সঙ্গে তার ধাক্কা লাগে। এতে তামান্না ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে ‘বেয়াদপ’ বললে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। বিশ^বিদ্যালয়ে পৌছে বেলা সাড়ে ১১টায় তিনি মূল ভবনের তৃতীয় তলায় ওয়াশিং র”মের সামনে দাড়িয়ে ছিলেন। এসময় তামান্নাসহ মার্কেটিং বিভাগের ছাত্র রিয়াদ, সিফাত সহ ৮/১০ জন সেখানে এসে তাকে মারধর শুর” করে।
উদ্ভিদ বিভাগের শিক্ষক সুব্রত কুমার সহ আরও কয়েকজন শিক্ষক এসে তাকে উদ্ধার করে। মারধরে সে গুর”তর আহত হওয়ায় শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।
শিক্ষক সুব্রত কুমার জানান, বিশ^বিদ্যালয়ের বাসে টিজ করা নিয়ে দু’দল ছাত্রের তর্কাতর্কি হয়েছিল। এর জের ধরে আব্বাস উদ্দিনের ওপর হামলা চালানো হয়। তিনি সহ অন্য শিক্ষকরা তাৎক্ষনিক দুপক্ষকে শান্ত করেন।
এ বিষয়ে ভিসি বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে আব্বাস উদ্দিন জানান শিক্ষক।
মহানগরীর বন্দর থানার ওসি এসএম মাহবুব আলম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ডিপার্টমেন্টের মধ্যে সমস্যা হয়। খবর পেয়ে তারা গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত রাখতে দুই ছাত্রকে নিয়ে এসেছেন। তাদের অভিভাবকরা এলে দুই ছাত্রকে জিম্মায় দেয়া হবে বলে ওসি জানিয়েছেন।