বন্দর থানার ওসি সহ ৩ পুলিশের বিরুদ্ধে শিক্ষিকার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ মহানগরীর বন্দর থানার ওসি সহ তিন পুলিশের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাদের হয়রানি থেকে রক্ষা পেতে পুলিশ কমিশনারের কাছে দেয়া আবেদন পত্র থেকে এ তথ্য জানাগেছে। রোববার ওই আবেদন করেন ভুক্তভোগী নাজমুন নাহার। তিনি মধ্য রাজারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা। ওসি রেজাউল ইসলাম ছাড়াও তাকে হয়রানি করা অপর দু’জন হলো এসআই গোফরান ও কনস্টেবল জুলফিকার। শুধু পুলিশ কমিশনার নয়। ওই আবেদনের অনুলিপি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় ও ডিআইজির কাছে দিয়েছেন শিক্ষিকা। তিনি জানান, কাজীর জীবডলন এলাকায় সঞ্জয়কর এর বাড়ীর কাছে কিছু জমি রয়েছে। সঞ্জয়কর ও একই এলাকার ধলু মোল্লা ওই জমি দখল করার অপচেষ্টা করে আসছে। দখল করার চেষ্টায় তাদের দ্বারা প্রভাবিত হয় থানার ওসি সহ উল্লেখিতরা তাদেরকে বিভিন্ন ধরনের হয়রানি করে আসছে। এর প্রেক্ষিতে গত ১৬ মার্চ সন্ধ্যা ৭টায় পুলিশের ওই ৩ সদস্য নাজমুন নাহারের কলেজ পড়–য়া ভাইকে তুলে নিয়ে যায় এবং শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। পরে তাদের ১০ হাজার টাকা উৎকোচ দিয়ে শহীদকে ছাড়িয়ে আনা হয়। এরপর থেকে বিভিন্ন সময় পুনরায় তার দুই ভাইকে উল্লেখিত পুলিশ সদস্যরা চুরি, ডাকাতি সহ রাজনৈতিক মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারের হুমকি ও টাকা দাবী করে আসছে। এর ধারাবাহিকতায় সঞ্জয়কর ও ধলু মোল্লাসহ ঐ ৩ পুলিশ কর্মকর্তার অত্যাচারে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে নাজমুন নাহার ও তার পরিবার। এ ঘটনায় ওই আবেদন জানানো হয়।