বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের কর্মী সংগ্রহ কাজ শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য ও বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের আহবায়ক এ্যাড ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিলো বলেই আজ বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। বঙ্গবন্ধুই স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। তার স্বপ্ন ছিলো সোনার বাংলা গড়ার। কিন্তু যুদ্ধাপরাধীরা তা হতে দেয়নি। তাকে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে আয়োজিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের কর্মী সংগ্রহ সভায় এ কথা বলেন তিনি। এ সময় তিনি আরো বলেন, দেশরতœ শেখ হাসিনা দেশের শাসক নয়, তিনি দেশের সেবক। তাই পূনরায় তাকে দেশের মানুষের সেবা করার সুযোগ দিতে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান জানিয়েছেন। প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে তিনি জানান, সকলকে ঐক্যবদ্ধ রাখতে আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদকে একত্রিত করে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের গঠন করা হয়েছে। দেশের সব বিভাগে এই সংগঠনের কর্মী সংগ্রহ কাজ শুরু হয়েছে। তারা পর্যায়ক্রমে বিভাগে ও জেলায় নেতাকর্মিদের কাছে যাবেন।
এ্যাড ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন আরো বলেন, ঢাকার বাহিরে যদি সার্কিট বেঞ্চ হয় তাহলে সেটি সবার আগে বরিশালে হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক এ্যাড সাহারা খাতুন (এমপি) বলেন, ১৯৭৫ সালে খুনি মোস্তাক জিয়া চক্ররা সেদিন বঙ্গবন্ধু সহ তার পরিবারের সকল সদস্যকে হত্যা করেছে। ভাগ্যক্রমে আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা ও তার বোন শেখ রেহানা দেশের বাহিরে থাকায় বেচে যায়। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বিএনপি ক্ষমতায় এসে তার হত্যার বিচার বন্ধ করে দিয়েছে। দীর্ঘ ২১ বছর আন্দোলন করে তারা ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করেছে।
তিনি আরো বলেন, ২০০৯ সালে ক্ষমতায় এসে ৭১ এর যুদ্ধাপরাধী ও মানবতা বিরোধীদের বিচার করেছে। ২০১৪ সালে ক্ষমতায় এসে দেশকে উন্নতির দিকে অগ্রসর করছে। পেটুয়া বিএনপি দেশের উন্নতির পথে বাধা সৃষ্টি করছে। বিএনপি দেশে অরাজকতা সৃষ্টি সহ ধ্বংসযজ্ঞে পরিনত করতে চেয়েছিলো। দেশরতœ শেখ হাসিনা তার চ্যালেঞ্জ গ্রহন করে তার দক্ষ নেতৃত্বের মাধ্যমে দেশকে বিশ্বের দরবারে একটি রোল মডেল হিসাবে তুলে ধরেছেন।
তিনি যদি এবারো নির্বাচিত হতে পারেন তাহলে ২০২১ সালে দেশকে মধ্যম ও ৪১ সালে দেশকে ক্ষুধামুক্ত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে সক্ষম হবেন।
বরিশাল জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর গিয়াস উদ্দিন কাবুলের সভাপতিত্বে আব্দুর রব সেরনিয়াবাত ভবনে অনুষ্ঠিত কর্মী সংগ্রহ উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন, সুপ্রিমকোর্ট’র আইনজীবী এবিএম বায়জিদ, রফিকুল ইসলাম হিরু, ব্যারিষ্টার তৌহিদুর রহমান সুজন, আইনজীবী এসএম ফজলুর রহমান, নাসরিন সিদ্দিকা নীলা, আজাহারুল হক ভুইয়া, একে তৌহিদ, বরিশাল আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক তালুকদার মোহাম্মদ ইউনুস, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সৈয়দ ওবায়েদুল্লাহ সাজু, রফিকুল ইসলাম ঝন্টুসহ অন্যান্য জেলা থেকে আসা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সম্পাদকবৃন্দ।
এ সময় অন্যান্য আইনজীবীদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আ’লীগের সভাপতি গোলাম আব্বাস চৌধুরি দুলাল, সাধারন সম্পাদক একেএম জাহাঙ্গির, সাবেক সাধারন সম্পাদক আফজালুল করিম, আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি মানবেন্দ্র বটব্যল, জিপি ঈসমাইল হোসেন নেগাবান, মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মঞ্জু আহাম্মেদ, সাবেক সভাপতি আনিছ উদ্দিন আহাম্মেদ শহীদ, মজিবর রহমান ১, সিনিয়র আইনজীবী নাসির আহাম্মেদ খান বাবুল, আব্দুর রশীদ খান, গোলাম মাসুদ বাবলু, দিলীপ ঘোষ, কাইয়ুম খান কায়সার, আতিকুর রহমান জুয়েল, ইসতিয়াক আহাম্মেদ রুবেল প্রমুখ।
সভা শেষে প্রধান অতিথি এ্যাড.ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন ও বিশেষ অতিথি এ্যাড. সাহারা খাতুন সমিতির সদস্যদের মধ্যে সদস্য সংগ্রহ ফরম দেন।