প্রয়াত হিরনের নামে সড়কের নামকরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ মৃত্যুর এক বছর পর প্রয়াত এমপি ও সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরণ’র স্মৃতি ধরে রাখতে উদ্যোগি হলো বরিশাল প্রশাসন ও সুধিজনেরা। নগরীর গড়িয়ার পাড় থেকে দপদপিয়ার শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু পর্যন্ত সিন্ডবি সড়কের নাম পরিবর্তন করে শওকত হোসেন হিরন স্মরনী নাম করন করার প্রস্তুতি নিয়েছেন তারা। গতকাল সোমবার বরিশাল জেলা প্রশাসনের সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত জেলা উন্নয়ন কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে।
সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক গাজী মো. সাইফুজ্জামান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উন্নয়ন কমিটির সভায় সকল সদস্য বৃন্দ ঐ সড়কটির নাম সিএন্ডবি রোডের পরিবর্তে শওকত হোসেন হিরণ স্মরনি নাম করনের প্রস্তাব রাখেন। এসময় জেলা প্রশাসক তাদের প্রস্তাবকে সমর্থন জানিয়ে বলেন, ইতোপূর্বে ঐ সড়কটি শওকত হোসেন হিরণ স্মরনী নাম করনের জন্য তার স্ত্রী বরিশাল সদর আসনের সাংসদ জেবুন্নেছা আফরোজ যোগাযোগ মন্ত্রনালয়ে পত্র পাঠান। পরবর্তীতে এ বিষয়ে বরিশাল জেলা প্রশাসনের নিকট মতামত চেয়ে পত্র প্রেরন করেন মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব। ঐ পত্রের বিষয়টি জেলা উন্নয়ন কমিটির সভায় উপস্থাপন করলে সকল সদস্যরা বিষয়টিতে এক মত প্রসন করেন বলে জেলা প্রশাসক ড. গাজী মো. সাইফুজ্জামান নিশ্চিত করেছেন।
এছাড়াও সভায় ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের ভোগান্তি দূর করতে সড়ক সংস্থার এবং নিরাপত্তা জোরদারের বিষয়ে নানামুখি পদক্ষেপ গ্রহন এবং সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়ে গুরুত্বারপ করেন।
উল্লেখ্য, বরিশাল সিটির সাবেক সফল মেয়র শওকত হোসেন হিরণ’র মৃত্যুর সময় এক বছরেরও বেশি হয়েছে। কিন্তু যে মানুষটি বরিশাল নগরীকে বিশ্বের দরবাদে অন্যতম একটি আধুনীক এবং সবুজ নগরী হিসেবে পরিচিত করিয়ে দিয়েছে সেই শওকত হোসেন হিরণ স্মরনে বরিশালের কোথাও নেই একটি স্মরনিকা বা ভাস্কর্য। শুধু মাত্র পরিবারের পক্ষ থেকে বরিশাল বিভাগীয় জাদু ঘরে একটি ছবি, শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতুর জিরো পয়েন্টের নাম হিরণ চত্ত্বর নাম করা হয়। কিন্তু নগরীর কোথাও তার একটি মুড়াল বা তাকে স্মরনিয় করে রাখতে কোন স্থাপনা বা রাস্তা তার নামে নাম কড়নের উদ্যোগ নেয়নি বরিশালের প্রশাসন বা সিটি কর্পোরেশন। অতপর তার সহধর্মীনির প্রচেষ্টা আর বর্তমান জেলা প্রশাসকের উদ্যোগি ভূমিকায় শওকত হোসেন হিরণ’র নামে নামকর হচ্ছে গরীয়ার পাড় থেকে শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু পর্যন্ত রাস্তার নামকরন। জেলা প্রশাসক এবং সাংসদ জেবুন্নেছার এমন উদ্যোগী ভূমিকার জন্য সাধুবাদ জানিয়েছেন নগরবাসী।