প্রাইভেট কার চুরির ঘটনায় চোরাই সিন্ডিকেটের নারী সদস্যসহ আটক-২

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ নগরী থেকে প্রাইভেট কার চুরির ঘটনায় চোরাই সিন্ডিকেটের সদস্যসহ দুই জনকে আটক করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে নগরীর ব্যাপ্টিষ্ট মিশন রোড এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।
আটককৃতরা হলো- প্রাইভেট কার চুরির মূল হোতা রাখি আক্তার ও তার ভাই হিমেল। কোতয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইদুল চোরাই সিন্ডিকেটের সদস্য দ্বয়কে আটক করে।
কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) আতাউর রহমান জানান, গত ১৮ নভেম্বর রাতে বরিশাল নগরীর ফলপট্টি আবাসিক হোটেল গোল্ডেন ইনের সামনে থেকে একটি ১০০ সিসি টয়োটা প্রাইভেট কার চুরি করে নিয়ে যায় নাসির নামে এক চোরাই সিন্ডিকেটের সদস্য। এ সময় তার সাথে ছিলেন স্ত্রী পরিচয়দানকারী রাখি নামে এক তরুণী। প্রাইভেট কারের নম্বর ঢাকা মেট্রো-গ-১২-৫৩১৩।
এদিকে অটোরিক্সা চুরির ঘটনার ঐ রাতেই মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন প্রাইভেট কারটির মালিক কাম চালক গিয়াস উদ্দিন। যার নম্বর-১০১৬। ডায়েরীর সূত্র ধরে মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আতাউর রহমান এর নেতৃত্বে উদ্ধার অভিযানে নেমে পড়েন মডেল থানা পুলিশের একটি টিম।
এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রাইভেট কার চোরাই চক্রের সদস্য নাসির এর স্ত্রী চুরির সহায়তাকারী রাখি আক্তার এর সন্ধান লাভ করেন তারা। পরে গতকাল সোমবার বিকালে নগরীর ব্যপ্টিষ্ট মিশন রোডে চৌধুরী ভিলায় অভিযান চালিয়ে রাখিকে আটক করেন এসআই সাইদুল। প্রথমে রাখিকে আটক করা হলেও পরে তার ভাই হিমেলকেও আটক করা হয়।
ওসি (তদন্ত) আতাউর রহমান জানান, হিমেলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয়েছে। যেহেতু তার দুলা ভাই এবং বোন প্রাইভেট কার চুরির সাথে জড়িত। সে জন্য শ্যালক হিমেল এর সম্পৃক্ততা রয়েছে কিনা তা তদন্ত’র জন্যই তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত ১৫ নভেম্বর ঢাকা টুঙ্গিপাড়া থেকে প্রতিদিন ২৮শ টাকা ভাড়ায় কুয়াকাটা ঘুরতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে প্রাইভেট কারটি ভাড়া করে নিয়ে আসে চোরাই সিন্ডিকেটের সদস্য নাসির। এসময় তার স্ত্রী রাখি আক্তার সাথে ছিলো। পরে কুয়াকাটায় ঘুরে বরিশালে হোটেল গোল্ডেন ইনে একটি কক্ষ ভাড়া নেয়। ১৮ নভেম্বর ঢাকায় ফেরার পূর্ব মুহূর্তে নাসির ও তার স্ত্রী রাখি প্রাইভেট কারটি নিয়ে পালিয়ে যায়।
নাসির নগরীর রূপাতলী পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন পিডিবির সাবেক স্টোর কিপার মৃত আব্দুল আউয়াল এর ছেলে। তার বড় ভাই একই এলাকার আলমগীর হোসেন।