প্রবাসীর স্ত্রী আত্মহত্যায় মা ও ছেলের কারাদন্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ প্রবাসীর স্ত্রীকে আত্মহত্যায় উৎসাহিত করা মামলায় মা ও ছেলেকে কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। এছাড়াও উভয়কে মোট ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১০ মাসের দন্ড দেয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার দ্বিতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. আদীব আলী এ দন্ড দেন। দন্ডপ্রাপ্তরা হলো- সদর উপজেলার রাজারচর এলাকার বাসিন্দা মৃত পবন মোল্লার স্ত্রী আমিরুন নেছা ও ছেলে শামিম মোল্লা। রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত শামিমকে ১০ বছর ও ১ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের দন্ড দেয়া হয়েছে। মা আমিনুর নেছাকে পৃথক দুই ধারায় ২ বছর কারাদন্ড ও ৬০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৪ মাসের দন্ড দেয়া হয়েছে।
আদালত সূত্র জানায়, সদর উপজেলার রাজারচরের বাসিন্দা প্রবাসী মো. সিরাজের স্ত্রী ফারজানা আক্তারের সাথে পরকিয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে শামীম মোল্লা। বিষয়টি ফারজানার শাশুড়ি সেতারা বেগম জানতে পেরে বাঁধা দেয়। এছাড়াও উভয় পরিবারের মধ্যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়।
এতে শামীম ও তার মা আমিরুন নেছা ক্ষিপ্ত হয়। এর জের ধরে ২০১৩ সালের ৩ মার্চ সন্ধ্যায় মায়ের সহায়তায় ফারজানাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে ধরা পড়ে শামীম। এ ঘটনায় লোকলজ্জার ভয়ে ফারজানা পরের দিন আত্মহত্যা করে।
পুত্রবধূর আত্মহত্যার ঘটনায় ১১ মার্চ শাশুড়ি সেতারা বেগম বাদী হয়ে আদালতে হত্যা মামলা করে। ওই বছরের ২৮ ডিসেম্বর মা ও ছেলেকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশীট) জমা দেয় ডিবি পুলিশের এসআই আবুল কালাম আজাদ। জজ ৮ জনের স্বাক্ষ্য নিয়ে ওই দন্ডাদেশ দেন।