প্রতিমা গড়ে তৃপ্ত মৃৎশিল্পীরা পেল সম্মাননা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ দুর্গা প্রতিমা তৈরি মৃৎশিল্পীদের সপ্তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সম্মেলন শেষে তাদের সম্মাননা দেয়া হয়েছে। নগরীর অশ্বিনী কুমার হলরুমে অনুষ্ঠিত সম্মেলন ও সম্মাননা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে দক্ষিণাঞ্চলীয় মৃৎশিল্পী সম্মেলন ও সম্মাননা কমিটি।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন প্রফেসর নিসার হোসেন মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্যদিয়ে এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।
এ সময় নিসার হোসেন বলেন, “দুর্গাপূজাকে সর্বজনীন বলা হয়। এ পূজা শুধু হিন্দু ধর্মের নানা বর্ণের সংমিশ্রণের নয়, এতে অন্য ধর্মের মানুষও অংশ নেয়। আর কাঁচা মাটি পৃথিবীতে একটি ইউনিক টেকনিক হিসেবে গণ্য। এ ধারার শিল্পীরা প্রায় হারিয়ে যেতে বসেছে।” “এদের উৎসাহিত ও পৃষ্ঠপোষকতাসহ এ ধারাটাকে মানুষের কাছে তুলে ধরে তাদের গুরুত্ব উপস্থাপন করাই এ আয়োজনের উদ্দেশ্য। দেশে এ মুহূর্তে সাম্প্রদায়িক শক্তি মাথাচড়া দিয়ে উঠেছে। তাই সকল ধর্মের সহানুভূতি গড়ে তোলা ও একটি মিলন বন্ধন তৈরি করাও আমাদের লক্ষ্য।”
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক গাজী মো. সাইফুজ্জামান। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, সাংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদের সাবেক সভাপতি নাট্যজন সৈয়দ দুলাল, রাখাল চন্দ্র দে ও সাইফুল হক জুই, বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সভাপতি নজরুল বিশ্বাস সহ সাংস্কৃতিক সংগঠন সমূহ ও পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানে সেরা ১০ জন মৃৎশিল্পীর মাঝে উত্তরীয় ও ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। শুভেচ্ছা বক্তব্য শেষে নিবন্ধিত ৬৮ জন মৃৎশিল্পী ও ১ শ’ জন সহযোগী মৃৎশিল্পীর (যার মধ্যে ৩০ মহিলা মৃৎশিল্পী রয়েছে) মধ্যে অর্থ, বস্ত্র, প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানস্থলে গ্যালারীর মাধ্যমে বিভিন্ন অঞ্চলের মৃৎশিল্পীদের কাজের নমুনা প্রদর্শণ করা হয়। পাশাপাশি ছাত্র ছাত্রীদের আঁকা ছবির প্রদর্শনী ও করা হয়। আকা ছবির মধ্যে অংশগ্রহনকারী শ্রেষ্ঠ ১০ জনকে পুরষ্কার প্রদাণ করা হয়। এছাড়া সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক হয়। ওই অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধা আক্কাস হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মু. জিয়াউল হক, বিএম কলেজ অধ্যক্ষ স.ম ইমানুল হাকিম, সাংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদ সভাপতি শান্তি দাস প্রমুখ।