প্রতিপক্ষের ছুরিতে জখম ছাত্রদল কর্মী রুম্মানের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ “ল” কলেজে সন্ত্রাসী হামলায় আহত ছাত্রদল কর্মী রুম্মান মারা গেছে। গতকাল শনিবার তাকে ঢাকা নিয়ে যাবার পথে তার মৃত্যু হয়েছে। রুম্মান এর বন্ধু ছাত্রদল কর্মী রেজা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। নিহত রুম্মান নগরীর হাসপাতাল রোড “ল” কলেজ এলাকার আব্দুস ছত্তারের ছেলে।
পুলিশ জানায়, শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে “ল” কলেজের মধ্যে রুম্মান ও তার সহযোগিরা মিলে কাউনিয়া এলাকার অপর ছাত্রদল কর্মী রেজাউল ইসলামকে মারধর করে। এসময় রেজাউল তার সাথে থাকা ছুরি দিয়ে রুম্মানকে কুপিয়ে মারাত্মক ভাবে জখম করে। খবর পেয়ে কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এসময় সেখান থেকে রুম্মানকে কুপিয়ে জখমকারী অপর ছাত্রদল কর্মী এবং রুম্মানের বন্ধু রেজাউলকে আটক করে কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ। এসময় কুপিয়ে জখমে ব্যবহৃত চাকু উদ্ধার করে তারা। তাছাড়া পুলিশ রুম্মানকে উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়।
এদিকে রুম্মানকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে জ্ঞান না ফেরায় গতকাল তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য মুখে অক্সিজেন লাগিয়ে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। সন্ধ্যার দিকে পরিবারের সদস্যরা একটি এ্যাম্বুলেন্স যোগে রুম্মানকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়।
বন্ধু রেজা জানায়, রুম্মানকে অক্সিজেন দিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হয়। পথিমধ্যে মাওয়া ঘাটে ফেরির জন্য অপেক্ষমান অবস্থায় সেখানেই রুম্মান এর মৃত্যু হয়। ফলে রাতেই সেখান তেকে রুম্মনের মরহেদ নিয়ে বরিশালের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয় বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন।
অপরদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, একই গ্রুপের সদস্য ছিলো হত্যাকারী ছাত্রদল ক্যাডার কাউনিয়া এলাকার রেজাউল ইসলাম ও রুম্মান। সম্প্রতি তাদের মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হয়। এ বিরোধের জের ধরে রুম্মান সহ অন্যান্যরা মিলে কুপিয়ে জখম করে রেজাউলকে। পূর্বের সেই ঘটনার জের ধরে গত শুক্রবার দুপুরে পুনরায় রেজাউল “ল” কলেজের সামনে গেলে সেখান থেকে রুম্মান ও তার সহযোগিরা তাক্লে কলেজ কম্পাউন্ডের মধ্যে ধরে নিয়ে যায়। সেখানে রেজাউলকে পুনরায় মারধর করে। এসময় রেজাউলের সাথে থাকা একটি ধারালো চাকু দিয়ে কুপিয়ে রুম্মানকে মারাত্মক ভাবে জখম করে। এতে তার দেহের ভেতরে গুরুত্বপূর্র্ণ স্থানে জখম হয়। তাছাড়া মাথায় আঘাত প্রাপ্ত হয় রুম্মান। এজন্যই তার মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করছেন শেবাচিম হাসপাতালের চিকিৎসকরা। আজ শেবাচিমের মর্গে নিহত রুম্মানের মরহেদের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করা হবে।