পুলিশ পেটানো তিন ছাত্রলীগ কর্মী জেলে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীতে পুলিশের উপর হামলার অভিযোগে মামলায় আটক ছাত্রলীগের তিন কর্মীকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে আদালত। গতকাল বুধবার বরিশালের মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম মো. আনিসুর রহমান তিন কর্মীকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মঙ্গলবার ছাত্রলীগের তিন কর্মী আমির হোসেন খান, রেদোয়ানুল ইসলাম রিফাত ও মার্কিনুল ইসলাম মারুফকে মহানগর ট্রাফিক পুলিশের এটিএসআই মো. মতিন’র উপর হামলা চালিয়ে আহত করার অভিযোগে আটক করা হয়। ওই রাতে কোতয়ালী মডেল থানায় তিন কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করে এটিএসআই মতিন। থানার বকসী আবুল কালাম জানান, বেআইনী জনতায় হামলা মারধর করে গুরুতর জখম, চুরি ও হুমকি দেয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে। ওই মামলার আসামী হিসেবে তিন কর্মীকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালত তাদের জেলে পাঠিয়েছে।

আটককৃত ছাত্রলীগ কর্মী আমির নগরীর অমৃত লাল দে কলেজের দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্র ও কাটপট্টি রোডের বাসিন্দা মো. আমজাদ হোসেন’র ছেলে, একই কলেজ ও শ্রেনীর ছাত্র রিফাত কাউনিয়া জানুকিসিং রোডের বাসিন্দা ও আওয়ামী ওলামা লীগের বরিশাল জেলার সভাপতি মাওলানা রফিকুল ইসলামের ছেলে এবং মারুফ বরিশাল সিটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্র ও কাটপট্টি রোড এলাকার বাসিন্দা খলিলুর রহমান’র ছেলে।

কোতয়ালী মডেল থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. ফরহাদ সরদার জানান, এটিএসআই মতিন মোটর সাইকেলে বান্দ রোডের ভাটারখাল এলাকা অতিক্রমকালে ছাত্রলীগ কর্মীদের মোটর সাইকেল ধাক্কা দেয়। তখন প্রতিবাদ করলে ছাত্রলীগের তিন কর্মী পুলিশ সদস্যকে বেধড়ক ভাবে পিটিয়ে আহত করে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ হামলাকারী তিনজনকে আটক করে। আহত পুলিশ সদস্যকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছে।