পুলিশ পুত্রকে অব্যাহতি দেয়ায় মামলা পূনঃতদন্তের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতবেদক॥ পুলিশ পুত্রকে অব্যাহতি দিয়ে চার্যশীট (তদন্ত প্রতিবেদন) জমা দেয়ায় পুনরায় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গতকাল রোববার ধার্য তারিখে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের দায়িত্ব প্রাপ্ত বিচারক এসএম নাসিম রেজা এ নির্দেশ দেন। আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১১ এপ্রিল কর্ণকাঠি রফিকের বাসার সামনে রাস্তার উপর মাদক ব্যবসায়ি ২ গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় স্থানীয় লোকজন বাধা দিলে আল-ইমরান তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এ ঘটনায় লোকজন তকে ধরে মারধর করে এবং অন্য দুইজন ডালিম ও শুভ পালিয়ে যায়। পরে র‌্যাব এসে একটি রিভলবার, একটি ছুড়ি, ২ রাউন্ড গুলি ও ৩টি কার্তুজ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় র‌্যাব-৮ এর ডিএডি নাজির আহম্মেদ ফরাজী ওই দিনই ৩ জনকে অভিযুক্ত করে বন্দর থানায় ১টি অস্ত্র মামলা দায়ের করে। অভিযুক্তরা নগরীর সাগরদীর ব্রাঞ্চ রোড এলাকার গোলাম মোস্তফার পুত্র আল-ইমরান, বদরুল ইসলাম সিকদারের পুত্র ডালিম ও রূপাতলী ওজোপাডিকো সংলগ্ন বাড়ির পুলিশ আজিজ মোল্লার পুত্র শুভ। আজিজ মোল্লা পটুয়াখালি থানার পুলিশ কনস্টেবল। মামলার প্রেক্ষিতে বন্দর থানার এসআই সৈয়দ আবু জাফর ওই বছরের  ২মে তদন্ত শেষে শুভকে অব্যাহতি দিয়ে জিআরও চার্যশীট জমা দেয়। পরে মামলার ধার্য তারিখে প্রতিবেদন আদালতে উপস্থাপন করলে ওই বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর তৎকালিন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক হাবিবুর রহমান প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে পুলিশের ছেলে শুভকে বাদ দেয়ার ঘটনা পায়। এর প্রেক্ষিতে ওই দিনই বিএমপি কমিশনারকে উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা দিয়ে মামলাটি পুনরায় তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়। আদালতের নির্দেশের পরও এখন পর্যন্ত আদালতে প্রতিবেদন জমা না দেওয়ায় গতকাল পুনরায় নির্দেশ দেওয়া হয় আগামী ২৯ অক্টোবরের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার।