পলিটেকনিক ছাত্র অপহরন ও পুলিশের উপর হামলা মামলায় ছাত্রলীগ নেতা সহ ১৩ জন কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল সরকারি পলিটেকনিক ইনিষ্টিটিউটের ছাত্র অপহরন করে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপন দাবি এবং পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার আটককৃত ২৫ জনের মধ্যে ১৩ ছাত্রকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। অপহরন, নির্যাতন এবং চাঁদাদাবির অভিযোগে অপহৃত পলিটেকনিকের ইলেকট্রিক্যাল বিভাগের ছাত্র দ্বীপ কুমার পাল মামলা দায়ের করেন। এছাড়া সরকারি কাজে বাধা ও পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে আরো দু’টি মামলা দায়ের করেছে। সকল মামলায় ওই ১৩ জনকে আসামী দেখানো হয়। এছাড়া মামলায় আরো বেশ কিছু শিক্ষার্থীদের অজ্ঞাতনামা আসামী করা হয়।
বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতোয়ালী মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মো. আবু তাহের জানান, ঘটনাস্থল থেকে যাদের আটক করা হয়েছে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে ১৩ জনের সম্পৃক্ততার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। যে কারনে ১৩ জনকে মামলার আসামী করা হয়। বাকিদের পুলিশি নজরদারীতে রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, গত বুধবার রাতে দ্বীপ কুমার বাদী হয়ে ছাত্রলীগ নেতা আসাদুজ্জামান ফাহিমসহ তার সহযোগিদের আসামী করে একটি মামলা করে। এছাড়া সরকারি কাজে বাধা ও পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনা এবং ধারালো অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা বাদী হয়ে আরো দু’টি মামলা দায়ের করেন। দায়েরকৃত মামলায় আসামীদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।
উল্লেখ্য গত বুধবার ভোর রাতে নগরীর নথুল্লাবাদ থেকে ছাত্রলীগ নেতা ফাহিম ও তার সহযোগিরা দীপকে অপহরণ করে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের প্রধান ছাত্রাবাসের পঞ্চম তলায় ৫০১ নম্বর রুমে আটকে রেখে শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা আদায়ে দ্বীপকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা চালায় ফাহিম। দুপুরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে দ্বীপকে উদ্ধার এবং ছাত্রলীগ নেতা ফাহিমকে আটক করে। এ সময় ছাত্রলীগ নেতা ফাহিমের সহযোগীরা পুলিশের হামলা চালালে এক পুলিশ সদস্য আহত হন। আটক করা হয় ২৫ জনকে।